নীড় পাতা / পাহাড়ের অর্থনীতি / দায়সাড়া শুরু মাসব্যাপি রাঙামাটি বাণিজ্য মেলার
parbatyachattagram

দায়সাড়া শুরু মাসব্যাপি রাঙামাটি বাণিজ্য মেলার

রাঙামাটিতে শুরু হয়েছে মাসব্যাপী বাণিজ্য মেলা। বৃহস্পতিবার সকালে রাঙামাটি কুমার সুমিত রায় জিমনেশিয়াম চত্বরে রাঙামাটি চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ আয়োজিত বাণিজ্য মেলা বেলুন উড়িয়ে উদ্বোধন করেন রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ।

পরে আলোচনা সভায় রাঙামাটি চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি মো. বেলায়েত হোসেন ভূঁইয়া’র সভাপতিত্বে সভার প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। এতে উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ছুফি উল্লাহ, চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজি মো. শাহ আলম, চেম্বার পরিচালক ও আহবায়ক রাঙামাটি বাণিজ্য মেলা কমিটি উসাং মং, চেম্বার পরিচালক নিখিল কুমার চাকমা, মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য মানুনুর রশীদ মামুন প্রমুখ।

আলোচনা সভায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ছুফি উল্লাহ বলেন, আমাদের দেশ একটি সুবর্ণ সময় পার করছে, কারণ আমাদের দেশের জনশক্তি অর্ধেক তরুণ, কিন্তু অন্য দেশে সেখানে সিনিয়র সিটিজানের সংখ্যা বেড়ে গেছে। তাদের কাজ করার ক্ষমতা কমে গেছে। কিন্তু আমাদের দেশের এই তরুণ জনশক্তিকে কাজে লাগাতে পারলে দেশ অনেক দূর এগিয়ে যাবে। তাই এখনি যদি সঠিক পরিকল্পনা নিয়ে এগিয় আসতে পারি তবে আমাদের দেশ সোনার বাংলায় রূপান্তর হবে। এমন মেলা করে দেশের তরুণ সমাজে উদ্যোক্তাই রপান্তর করতে পারে। সেটা করতে পারলে দেশের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। তিনি আরও বলেন, রাঙামাটিতে এমন মেলা নয় আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা আয়োজন করার জন্য চেম্বার নেতাদের অনুরোধ করেন। তাতে এখানে উৎপাদিত পণ্য বিশ্ব মানের, শুধু মাত্র ক্ষেত্রটা তৈরি করে দিতে পারলে রাঙামাটি অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাবে।

জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ মেলার সার্বিক ব্যাবস্থাপনা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে বলেন, এসেছিলাম মেলা উদ্বোধন করে কেনাকাটা করবো, কিন্তু মেলার কোন কিছুই এখনো প্রস্তুত হয়নি। এমন তরিঘরি করে মেলা উদ্বোধনের কী প্রয়োজন ছিল।
এই মেলা নিয়ে চেম্বার সভাপতি ও পরিচালকগণ যেমন কর্ম ব্যস্ত দিন পার করেছে তাতে ভেবে ছিলাম বেশ জমজমাটা মেলা হবে, বাস্তবে অন্তঃসার শূণ্য। এমনটা কাম্য ছিল না। তিনি আরও বলেন, যা হয়েছে সেটা বাদ দিয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে মেলার সকল স্টল প্রস্তুত করে এই মেলাকে আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে।

এসময় বক্তারা বলেন, বাণিজ্য মেলার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত পণ্য মেলায় বিক্রয় ও প্রদর্শনের মাধ্যমে পার্বত্য জেলার জনসাধারণের কৃষ্টি ও কালচার প্রচার করা, নিজেদের ঐতিহ্য দেশে-বিদেশে তুলে ধরা। এ মেলার মাধ্যমে বিভিন্ন ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সামগ্রী পর্যটকদের মাধ্যমে সারাদেশে ছড়িয়ে পড়বে এবং রাঙামাটি ঐতিহ্যকে সারাদেশের মানুষ নতুন করে জানতে পারবে।

এদিকে সরেজমিনে দেখা যায়, মেলায় কোন স্টলই প্রস্তুত হয়নি। সব স্টলগুলো সাদা কাপড় দিয়ে ঘিরে রাখা হয়েছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বান্দরবান শহর আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে অমল-সামশুল

বান্দরবান শহর আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্মেলনে অমল কান্তি দাশ সভাপতি, সম্পাদক পদে সামশুল …

Leave a Reply