রাঙামাটিলিড

জ্ঞানী বক্তা না হলে ধর্ম সভাগুলো নিষিদ্ধ করতে হবে

রাঙামাটিতে আন্তঃধর্মীয় সম্প্রীতি সভায় দিনাজপুরের সাংসদ

জিয়াউল জিয়া ॥
যারা ধর্ম সভায় আলোচনা করেন তাদের পর্যাপ্ত জ্ঞানী মানুষ না হলে ঐসব সভায় তাদের আলোচনা নিষিদ্ধ করতে হবে। এসব বন্ধের জন্য প্রয়োজনে সংসদে আইন করে নিয়ন্ত্রণেরও দাবি জানান দিনাজপুর ১ আসনের সাংসদ মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি। রবিবার দুপুরে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে রাঙামাটিতে ধর্মীয় নেতাদের সাথে আন্তঃধর্মীয় সম্প্রীতি সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, তারা ধর্মের কথা বলে অধর্মকে প্রতিষ্ঠা করে সমাজে বিশৃঙ্খলা তৈরির চেষ্টা করছে। এসব নিয়ন্ত্রণ করা না হলে ভবিষ্যতে সমাজ ও রাষ্ট্র ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

রাঙামাটি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুইপ্রু চৌধুরীর সভাপতিত্বে আন্তঃধর্মীয় সম্প্রীতি সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান এমপি। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন রাঙামাটির সাংসদ ও খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার, রাঙামাটি পুলিশ সুপার মীর মোদ্দাচ্ছের হোসেনসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে আগত বিভিন্ন ধর্মের ধর্মীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বক্তারা বলেন, ধর্মের নামে আশান্তি সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। ধর্মের অপব্যাখা যাতে আমরা না করি। পৃথীবির সকল ধর্ম শান্তির কথা বলেছে। কিন্তু কিছু মানুষ ধর্মের নামে অপব্যাখা দিয়ে বিভিন্ন সময় জঙ্গিবাদ সৃষ্টি পাঁয়তারা করে যাচ্ছেন। সরকার প্রতিটি ধর্মের মানুষের কল্যাণে কাজ করছে। বক্তারা আরও বলেন, করোনাকালীন সময়ে প্রতিটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button