ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ‘দুর্নীতি’ ও ‘স্বেচ্ছাচারিতা’র অভিযোগ

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি রাঙামাটি ইউনিটের দ্বিতীয় মেয়াদেও সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পাওয়া বৃষ কেতু চাকমার বিরুদ্ধে ‘সেক্রেটারি’র অননুমোদিত বিল সাক্ষরের মাধ্যমে ‘অনিয়ম ও দুর্নীতি’র অভিযোগ এনেছে সংস্থাটির অপসারিত কমিটির নেতারা।

বৃহস্পতিবার সকালে রাঙামাটি শহরের একটি রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে এই অভিযোগ আনেন তারা। তারা অভিযোগ করেন, রাঙামাটির পাহাড়ধসের ঘটনায় কেন্দ্র থেকে যে টাকা এসেছিলো,তার খরচ যথাযথভাবে না হওয়ায় বিলের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তারা। কিন্তু জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সেই বিল অনুমোদন দিয়ে প্রমাণ করেছেন,তিনিও এই ‘অবৈধ বিল’ এর ভাগিদার। আর এই অনিয়মের প্রতিবাদ করার কারণেই রাঙামাটি রেডক্রিসেন্ট এর ইতিহাসে প্রথম গনতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নির্বাচিত কমিটিকে অন্যায়ভাবে অপসারণ করে দলীয় লোকদের পুনর্বাসন করে নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অপসারিক কমিটির ভাইস চেয়ারম্যানও সাবেক পৌর মেয়র সাইফুল ইসলাম চৌধুরী ভূট্টো,সেক্রেটারি বখতেয়ার উদ্দীন,ডা: গঙ্গা মানিক চাকমা,নাইপ্রু মারমা মেরি এবং জসীমউদ্দীন।

তারা বলেন, নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পরও গনতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে পাশ কাটিয়ে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান তার দলীয় প্রভাব কাজে লাগিয়ে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির কেন্দ্রকে ব্যবহার করে রাঙামাটি কমিটিকে বিলুপ্ত করে দলীয় লোকদের দিয়ে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করিয়েছেন। বিষয়টি রেডক্রিসেন্ট এর চেতনা ও স্পিরিট এর সম্পূর্ণ বিরোধী।

জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও সভাপতির এই কাজকে ‘গোয়ার্তুমি’র মাধ্যমে ‘স্বেচ্ছাচারি’ কাজ হিসেবে মন্তব্য করেছেন তারা। তারা বলেন, চেয়ারম্যান নিজে ইউনিট অফিসারসহ চেকে ও বিলে সাইন করে যে অনিয়ম ও দুর্নীতি করেছেন,সেটা থেকে বাঁচার জন্যই আমাদের কমিটিকে অপসারণ করিয়েছেন। এক্ষেত্রে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান ও মহাসচিবও নিজের দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মচারিদের বাঁচাতে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে সহযোগিতা করছেন বলে দাবি করেছেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে নিজেরা কোন দুর্র্নীতির সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে অপসারিত এই কমিটির নেতারা বলেন, প্রতিটি চেকে ও বিলে চেয়ারম্যানের সাক্ষর আছে। যদি অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়,সেটার দায় চেয়ারম্যান কোনভাবেই এড়াতে পারেন না।

আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবি এই সংগঠনটিকে ‘দলীয়করণ’ করায় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের কঠোর সমালোচনা করে তারা বলেন, চেয়ারম্যান এই স্বেচ্ছাসেবি সংগঠনটিকেও দলীয়করণের মাধ্যমে রাঙামাটিবাসিকে এর সত্যিকার সেবা থেকে বঞ্চিত করার অপতৎপরতা শুরু করেছে,যা দু:খজনক।’

সংবাদ সম্মেলনে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির নেতারা আরো বলেন, অন্তবর্তকালির এডহক কমিটির বৈধতার বিরুদ্ধে ইতোমধ্যেই উচ্চ আদালত থেকে আমরা নির্দেশনা পেয়েছি এবং এখন আইনগত প্রক্রিয়াতেই সবকিছু মোকাবেলা করা হবে।

প্রসঙ্গত, আগামী ৩১ ডিসেম্বর রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির রাঙামাটি ইউনিটের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে। এর আগেই নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু হলে নির্বাচনী কার্যক্রম স্থগিত করার কথা বলেন চেয়ারম্যান এবং মৌখিক নির্দেশ দেন। এরই প্রেক্ষিতে গত ২ নভেম্বরকে রাঙামাটি ইউনিটের সভাপতি চেয়ারম্যানকে আইনগত নোটিশ প্রেরণ করেন সেক্রেটারি বখতেয়ারউদ্দীন। এরই মধ্যে ৫ নভেম্বর সোসাইটির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে ‘কার্যক্রমে ধীরগতি’র অভিযোগ এনে বর্তমান কমিটি বাতিল করে অন্তবর্তীকালিন সময়ের জন্য নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়। এনিয়ে শুরু হয় আইনী যুদ্ধ এবং পাল্টাপাল্টি অভিযোগ।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

ি কমেন্ট

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: