ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

জুলাই মাসেই রাঙামাটি ছাত্রলীগের সব ইউনিটের সম্মেলন

জুুলাই মাসের মধ্যেই ওয়ার্ড,ইউনিয়ন থেকে শুরু করে জেলা অবধি সব ইউনিটের সম্মেলন শেষ করতে ব্যাপক প্রস্তুুতি শুরু করেছে রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগ।

রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের জরুরী নির্দেশনা মোতাবেক এই সম্মেলনের কাজ শুরু করেছে তিন বছর আগেই মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়া জেলা ছাত্রলীগ।

২০১৫ সালের ২ জুন রাঙামাটি জেলা সম্মেলনের দিন কোন কমিটি ঘোষণা করা না হলেও পরের দিন ৩ জুন রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সেক্রেটারি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের পক্ষে ৫ সদস্যের জেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করেছিলেন। ৫ সদস্যের ছাত্রলীগই বহাল ছিলো দুই বছরেরও বেশি সময়। এর প্রায় আড়াই বছর পর ২০১৮ সালের ১১ জানুয়ারি জেলা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। মেয়াদ শেষ হওয়ার আড়াই বছর পর ঘোষিত এই কমিটি খুব একটা জনপ্রিয়ও হয়নি। গত ৪ বছর ধরে নানান বিতর্কিক কর্মকান্ডের জন্য সমালোচিত এই কমিটির মেয়াদকালে পুলিশের গাড়ী থেকে আসামী ছিনতাই,সাংবাদিকদের মারধর,গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে মিছিল,ফেসবুক স্ট্যাটাসের কারণে বহিষ্কার,নিজ দলের কলেজ সম্পাদককে মারধর, মাদক ব্যবসা ও মোটর সাইকেল পাচারের সাথে জেলা ছাত্রলীগের একাধিক নেতার জড়িত থাকার অভিযোগসহ নানান অপকর্মে ছাত্রলীগের কারণে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে জেলা আওয়ামীলীগও। এইসব কারণে জেলা আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতারাও সহযোগি এই সংগঠনটির উপর অসন্তুষ্ট ছিলেন। এরই অংশ হিসেবে এই সম্মেলনের নির্দেশনা বলে জানা গেছে।

রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক প্রকাশ চাকমা জানিয়েছেন, আমরা ইতোমধ্যেই ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড ও পৌর ছাত্রলীগের সকল ইউনিটকে ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে সম্মেলন শেষ করার নির্দেশ দিয়েছি। ১৬ জুলাই থেকে প্রতিটি উপজেলার সম্মেলন শুরু হবে এবং মাসের শেষের দিকে আমাদের জেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিক হবে। যেকোন মূল্যে জননেতা দীপংকর তালুকদারের নির্দেশনা মতো জুলাই মাসেই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।’ সম্মেলন সফল করতে আগামী ৯ জুলাই সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি ঘোষণা করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

জেলা ছাত্রলীগ সূত্র জানিয়েছে, এবারের নতুন কমিটিতে তাদেরই স্থান দেয়া হবে যাদের বয়স সর্বোচ্চ ২৯ বছর। এছাড়া অবশ্যই ছাত্রত্ব থাকতে হবে,অবিবাহিত হতে হবে,কোন ফৌজদারি মামলায় অভিযুক্ত নয় এবং আঞ্চলিক বা সাম্প্রদায়িক কোন সংগঠনের সাথে জড়িত নয়, এমন নেতাকর্মীদের নিয়েই গঠিত হবে নতুন কমিটি। কমিটিতে নেতৃত্ব নির্বাচনে ত্যাগি,পরীক্ষিত এবং নিবেদিতপ্রাণ কর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে বলেও জানিয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের একাধিক সূত্র।

প্রকাশ চাকমা জানিয়েছেন, পার্বত্য এই জেলায় আওয়ামীলীগের রাজনীতি ও জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে জননেতা দীপংকর তালুকদারের উদ্যোগে আওয়ামীলীগ ও প্রতিটি সহযোগি সংগঠনকে আরো শক্তিশালী ও গতিশীল করতে যে কার্যক্রম শুরু হয়েছে,তারই অংশ হিসেবে প্রতিটি অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের সম্মেলন শুরু হচ্ছে,ছাত্রলীগকে দিয়েই শুরু হচ্ছে এই কার্যক্রম। স্বাভাবিকভাবেই আমরা চেষ্টা করব একটি সুন্দর সম্মেলন ও যোগ্য নেতৃত্ব উপহার দিতে।’

আসন্ন সম্মেলনে যোগ্য,পরীক্ষিত এবং মেধাবী নেতৃত্ব নির্বাচন করতে চান জানিয়ে প্রকাশ চাকমা বলেন, আমরা যেটা পারিনি,নতুন কমিটি সেটা করবে এবং আরো বেশি শক্তিশালী সংগঠন গড়ে তুলে পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্রের বিরুদ্ধে আমাদের জননেতা দীপংকর তালুকদারের যে লড়াই তাকে আরো গতিশীল যেনো করতে যেনো পারে,সেটাই আমরা চাইব এবং সেইরকম নেতৃত্ব নির্বাচনের চেষ্টাই আমরা করব।’

তিনি সম্মেলন সফল করতে ও যোগ্য নেতৃত্ব নির্বাচনে গণমাধ্যমেরও সহযোগিতা কামনা করেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button