বান্দরবানব্রেকিংলিড

জমি দখলের অভিযোগে উচহ্লা ভান্তের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

বান্দরবানে জমি দখলের অভিযোগে রামজাদির প্রতিষ্ঠাতা বৌদ্ধ ধর্মীয়নেতা উচহ্লা ভান্তের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করেছে ভুক্তভোগীরা। বুধবার সকালে বান্দরবান প্রেসক্লাবের সামনে খ্রিস্টান ক্যাথলিক মিশনসহ ভূক্তভোগী ২০ জনের উদ্যোগে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। মানববন্ধনে ভূক্তভোগীদের আত্মীয়-স্বজন ছাড়াও বড়–য়া সমিতি এবং খ্রিস্টান ক্যাথলিক মিশনের সঙ্গে সম্পৃক্ত শতশত নারী-পুরুষ অংশ নেয়।

কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন বান্দরবান পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও জেলা বড়–য়া কল্যান সমিতির সভাপতি দিলীপ বড়–য়া, বান্দরবান ফাতিমা রানী ক্যাথলিক মিশন গীর্জার ফাদার জেরোম ডি’রোজারিও, বান্দরবান বোমাং সার্কেলের মৌজা হেডম্যান রাজপুত্র নংমংপ্রু মারমা, পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য ফিলিপস ত্রিপুরা, বাঙ্গালী পরিষদের নেতা মোহাম্মদ নূর আলম।

মানববন্ধনে বড়–য়া কল্যাণ সমিতির সভাপতি দিলীপ বড়–য়া অভিযোগ করে বলেন, রামজাদির প্রতিষ্ঠাতা উচহ্লা ভান্তে একজন বৌদ্ধ ধর্মীয় গুরু হওয়ার পরও বড়–য়া সমিতি এবং ক্যাথলিক মিশনসহ ২০ জন ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের নামীয় ১০০ একর বিভিন্ন শ্রেণীর জমি দখল করে রেখেছে। অবৈধ দলখ উচ্ছেদ করতে আদালতে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলাও চলমান রয়েছে। আমরা জমিগুলো ফিরে পেতে আদালতের আশ্রয় নিয়েছি।

রাজপুত্র নংমংপ্রু বলেন, আমার পিতা প্রয়াত রাজা মংশৈপ্রু চৌধুরীর আমল থেকেই ৮ একর জায়গাটি আমাদের দখলেই ছিলো। কিন্তু গভীররাতে একদিন ধানী জমিসহ সম্পূর্ণ জায়গাগুলো দখল করে নিয়েছেন উচহ্লা ভান্তে। শুধু আমার জমি নয়, পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন জনের কমপক্ষে একশ একর জমি অবৈধভাবে দখল করে রেখেছেন। ইতিপূর্বে উক্ত জায়গায় ১৪৪ ধারা বলবৎ ছিলো, কিন্তু ধর্মীয়নেতা হওয়ার ফায়দা নিয়ে তিনি সেটিও অমান্য করেছেন। একজন ধর্মীয় নেতা হিসাবে তাকে সম্মান করি। তবে বৌদ্ধ ধর্মীয় নেতা হবার পরও বড়–য়া সমিতিসহ ২০ জন/প্রতিষ্ঠানের নামীয় জায়গা অবৈধভাবে দখল করে নিয়েছেন। যে কারণে তার সঙ্গে নিজের ধর্মের লোকজনের বিরোধ চলছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button