ব্রেকিংরাঙামাটি

জগদ্বাত্রী মেলার ৩ দিন পরেও অপসারিত হলোনা আবর্জনা !

রাঙামাটি শহরের ঐতিহ্যবাহি জগদ্বাত্রী রাস উৎসব উপলক্ষ্যে আয়োজিত ‘জগদ্বাত্রী মেলা’ শেষ হওয়ার তিনদিন পরও পরিষ্কার হয়নি মেলাচত্বর। শহরের প্রধান সড়কের উপর মেলার দোকানদারদের পরিত্যক্ত আবর্জনা যেনো পুরো শহরেই লজ্জার প্রতীক হিসেবেই ছড়িয়ে রয়েছে। গত ৩১ অক্টোবর মেলা শেষ হলেও ৩ নভেম্বর রাত সোয়া আটটায় এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পরিষ্কার হয়নি মেলা চত্বর।

শুক্রবার বিকালে মেলা চত্বরের স্থানটিতে গিয়ে দেখা যায় বাতাসে উড়ছে পরিত্যক্ত বর্জ্য,বিভিন্ন স্থানে স্তুুপীকৃত হয়ে আছে আবর্জনা। এই নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও ক্ষোভ ও অসন্তুষ্টির কথা জানিয়েছে শহরের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। তিনদিনের মধ্যেও এই আবর্জনা অপসারণ না করায় ক্ষুদ্ধ অনেকেই এর জন্য দুষছেন রাঙামাটি পৌরসভা এবং মন্দির কমিটিকে। কেউ কেউ বলছেন, মন্দির কমিটি দোকান থেকে ভাড়া আদায় করলেও স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ দেয়নি আবার আবর্জনা অপসারণ না করে দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছে। আবার কেউ বলছেন, এই কাজটি পৌরসভার,তারা ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে।

শহরের প্রবীণ নাগরিক ও বিশিষ্ট সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে বলেন, এটা আসলে আমাদের সবার জন্যই লজ্জার। মেলার শেষ হওয়ার তিনদিন পরেও যদি শহরের প্রধান সড়কের উপর এসব ময়লা আবর্জনা পড়ে থাকে,সেটা দেখতেও ভালো দেখায়না। যে বা যারা এই আবর্জনা অপসারণের সাথে সম্পৃক্ত তারা তাদের দায়িত্ব ঠিকমতো পালন না করাতেই হয়তো এটা হয়েছে। আমি অনুরোধ করবো দ্রুত যেনো এই আবর্জনাগুলো অপসারণ করা হয়।

মেলার আয়োজক শ্রী শ্রী জগদ্বাত্রী মন্দির কমিটির সাধারন সম্পাদক স্বপন কান্তি মহাজন বলেছেন, আমরা তো অনেকবছর ধরে এই উৎসব ও মেলা আয়োজন করে আসছি। সচরাচর পরের দিনই পৌরসভা এটি পরিষ্কার করে। এইবার কেনো এখনো করেনি আমরা জানিনা। তারা পরিষ্কার করতে না চাইলে আমাদের বললেও হতো, আমরা নিজেরাই পরিষ্কার করতাম। এখন তিনদিন রাস্তার উপর আবর্জনা পড়ে থাকা আমাদের জন্যও যথেষ্ট বিব্রতকর।

এই বিষয়ে কথা বলার জন্য রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী ও প্যানেল মেয়র জামাল উদ্দিনকে একাধিকবার ফোন করলেও তারা ফোন ধরেননি।

তবে পৌরসভার পরিচ্ছন্নতা বিভাগের কনজারভেন্সি সুপারভাইজার বিপ্লব তালুকদার বলেছেন,কঠিন চীবর দানোৎসব উপলক্ষ্যে আমাদের সব পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা ব্যস্ত ছিলো, তাই দেরি হয়েছে। দ্রুতই এটা পরিষ্কার করব।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button