বান্দরবান

গরু নিয়ে বিবাদে গৃহবধূকে জখম: প্রধান আসামি কারাগারে

বান্দরবানের লামায়

লামা প্রতিনিধি
প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন। বর্তমানেও চিকিৎসাধীন আছেন দাবি করে এক গৃহবধূর ওপর হামলার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় আদালতে জামিন আবেদন করেন আব্দুর রহিম (৩২) নামের এক ব্যক্তি। কিন্তু আদালতের বিচক্ষণতায় ধরা পড়ে যান বিবাদী আব্দুর রহিম, তাই শেষ রক্ষা হয়নি তার। অবশেষে অসুস্থ্যতা ভানের বিষয়টি মিথ্যা প্রমাণিত হলে আব্দুর রহিমকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। জনৈক আবু তাহের কর্তৃক দায়েরকৃত মামলার হাজিরা দিতে গেলে উপজেলা সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক বিবাদী আবদুর রহিমকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আব্দুর রহিম উপজেলার রুপসীপাড়া ইউনিয়নের উত্তর দরদরী হেডম্যান পাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ কবিরের ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ১২ আগস্ট দুপুরের দিকে মামলার বাদী আবু তাহেরের স্ত্রী গৃহপালিত তিনটি গরু নিজ বাগানে বেঁধে দেন। বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে পাশের আব্দুর রহিম পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গরুগুলো ছেড়ে নিয়ে আবু তাহেরের ধান ক্ষেতে লাগিয়ে দেন। এ নিয়ে তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে রুপসীপাড়া ইউনিয়নের উত্তর দরদরী নয়াপাড়ার জনৈক তাজুলের বাড়ীর সামনে দা লাঠি নিয়ে আবু তাহেরের স্ত্রীর ওপর হামলা করে রক্তাক্ত জখম করেন আব্দুর রহিম ও তার লোকজন। এসময় বিবাদীরা বাদীর স্ত্রীসহ পরিবারের অন্য সদস্যদেরকেও হত্যা করে লাশ গুম করার হুমকি দিয়ে যায়। খবর পেয়ে স্থানীয়রা আহত গৃহবধূকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় আহত গৃহবধূর স্বামী আবু তাহের বাদী হয়ে ১৬ আগস্ট আব্দুর রহিমকে (৩২) প্রধান আসামি করে থানায় একটি এজাহার দাখিল করেন। এজাহারটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করে থানা পুলিশ (মামলা নং ৫, তারিখ- ১৬/০৮/২১ইং)।

এজাহারে উল্লেখিত অন্য আসামিরা হলো- আব্দুর রহিমের ভাই জসিম উদ্দিন (৩০), দরদরী হেডম্যান পাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ কবিরের স্ত্রী জহুরা রানী (৫৫) ও মো. জসিমের স্ত্রী নাছিমা আক্তার (২৫)। গত সোমবার এ মামলার হাজিরার দিন ধার্য্য ছিল। প্রতিপক্ষের হামলায় বর্তমানে আব্দুর রহিম গুরুতর অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন; এমন কথা বলে আদালতে জামিন আবেদন করেন। পরে অসুস্থতার বিষয়টি আদালতের সন্দেহজনক হলে সত্যতা যাচাইয়ের জন্য আব্দুর রহিমকে পুলিশি পাহারায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায় আদালত। সেখানে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক মোহাম্মদ রোবীন পরীক্ষা নীরিক্ষা করে দেখেন আব্দুর রহিম সুস্থ আছেন। পরে দীর্ঘ শুনানীর পর আব্দুর রহিমকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এদিকে মামলার বাদী ও গৃহবধূর স্বামী আবু তাহের বলেন, স্বামীকে মারধরের অভিযোগ তুলে গত ১৬ আগস্ট আমার ছেলেসহ ১৭ জনকে বিবাদী করে থানায় মামলা করেন প্রতিপক্ষ আব্দুর রহিমের স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস। তার অভিযোগে যতটা আহত হওয়ার ঘটনা উল্লেখ করেছেন, বাস্তবে আব্দুর রহিম ততটা আহত হননি বলে দাবি করেন আবু তাহের। এদিকে জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে বিবাদী আব্দুর রহিমকে কারাগারে পাঠানোর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন উপজেলা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের আইনজীবী জাফর আলম। তিনি বলেন, আব্দুর রহিম অসুস্থতার ভান ধরে জামিন চেয়েছিলেন। কিন্তু বিজ্ঞ আদালতের বিচক্ষণতায় শেষ রক্ষা হয়নি আব্দুর রহিমের।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button