নীড় পাতা / ব্রেকিং / কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তেই ‘আস্থা’ ও ‘পূর্ণ সমর্থন’ রাঙামাটি বিএনপি’র

কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তেই ‘আস্থা’ ও ‘পূর্ণ সমর্থন’ রাঙামাটি বিএনপি’র

‘দলের পক্ষে রাঙামাটি থেকে যে ৯ জন প্রার্থী মনোনয়ন নিয়েছেন,তাদের যে কেউই মনোনয়ন পেলে তার পক্ষে কাজ করবে রাঙামাটি জেলা বিএনপি ও সহযোগি সংগঠনের নেতারা’-স্পষ্টভাবেই নিজেদের এই অবস্থান পরিষ্কার করেছে দলটির রাঙামাটির নেতারা।

সোমবার সন্ধ্যায় জেলা বিএনপি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এভাবে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরেছেন রাঙামাটি বিএনপির মূলধারার নেতাকর্মীরা। জেলা বিএনপির মূল নেতৃত্ব কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্তের প্রতি নিজেদের পূর্ণ আস্থার কথা জানালেও বিদ্রোহীরা ভরসা রাখছেন তাদের নেতা দীপেনেই ! সকালে বিদ্রোহীদের সংবাদ সম্মেলনের পর সন্ধ্যায় তাড়াতাড়ি করেই ডাকা এক সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করেছেন দলটি মূল নেতৃত্ব। কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্তের প্রতি নিজেদের আস্থা ও পূর্ণ সমর্থনের বিষয়টিও নিশ্চিত করেছেন তারা এই সংবাদ সম্মেলনে।

রাঙামাটি জেলা বিএনপি,যুবদল,ছাত্রদলসহ সবগুলো অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত এই সংবাদ সম্মেলনে দীপেন অনুসারিদের দাবিকে উড়িয়ে দিয়ে বলা হয়, ‘তৃণমূলের কর্মী দাবি করে যারা সাংবাদিক সম্মেলন করে দীপেন দেওয়ানকে প্রার্থী দেওয়ার জন্য বক্তব্য প্রদান করেছে,তার সাথে রাঙামাটি জেলা বিএনপি ও অংগ সহযোগি সংগঠনের কোন সম্পৃক্ততা নেই।’

এই সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ‘দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের স্বদেশ ফেরত আন্দোলনের অংশ হিসাবে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৯৯ আসনে রাঙামাটি জেলা বিএনপি হতে মনোনয়ন জমা প্রদানকৃত ৯ জন নেতৃবৃন্দ হতে সবদিক বিবেচনা করে আসন পুনরুদ্ধারের জন্য ধানের শীষের প্রার্থী হিসাবে যাকেই এই আসনে মনোনয়ন দেয়া হবে সকল মত ভেদাভেদ ভুলে আমরা সেই প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে যাব। এতে আমাদের মধ্যে মতপার্থক্য থাকবে না।’

সংবাদ সম্মেলনে সরবরাহ করা লিখিত বক্তব্যে জেলা বিএনপির সহসভাপতি সৈয়দ হারুনুর রশীদ,যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল মান্নান,সদর উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি বরুন রায়,সাধারন সম্পাদক মুজিবুল হক,পৌর বিএনপির সভাপতি এসএম শফিউল আজম,সাধারন সম্পাদক মাহবুবুল বাসেত অপু,জেলা যুবদলের সভাপতি সাইফুল ইসলাম শাকিল,সাধারন সম্পাদক আবু সাদাৎ মোঃ সায়েম,জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম তালুকদার,সাধারন সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান,জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ফারুক আহমেদ সাব্বির,সাধারন সম্পাদক আলী আকবর সুমন,জেলা মহিলা দলের আহ্বায়ক মিনারা আরশাদ,সদস্য সচিব শাহেদা আক্তার,জেলা জাসাসের আহ্বায়ক আলী হোসেন চৌধুরী,সদস্য সচিব আবুল হোসেন বালি,জেলা তাঁতি দলের সভাপতি আব্দুল গণি মজুমদার,সাধারন সম্পাদক আনোয়ার আজিম,জেলা মৎসজীবি দলের সভাপতি আবুল বশর বাচা,সাধারন সম্পাদক ফনিন্দ্র চাকমা,জেলা ওলামা দলের সভাপতি মাওলানা আবুল কাশেম,সাধারন সম্পাদক মাওলানা মোঃ ইব্রাহীম এর সাক্ষর রয়েছে।
এসময় বিএনপি ও সহযোগি সংগঠনগুলোর বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, রাঙামাটি বিএনপির ৯ জন নেতা দলীয় মনোনয়ন নিয়েছেন প্রার্থীতা পেতে। এদের মধ্যে রয়েছেন কেন্দ্রীয় কমিটির সহ উপজাতীয় বিষয়ক সম্পাদক,পার্বত্য চট্টগ্রামে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলনকারি লে.কর্ণেল (অব) মণীষ দেওয়ান,কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক দীপেন দেওয়ান,জেলা বিএনপির সভাপতি হাজী মোঃ শাহ আলম,যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট মামুনুর রশীদ মামুন,সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম পনির,সাবেক পৌর মেয়র সাইফুল ইসলাম ভূট্টো,বাঘাইছড়ির সাবেক মেয়র আলমগীর কবির,কাপ্তাই উপজেলা চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন,সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী ও এক যুগ নির্বাচনে থাকার পর দলে ফিরে আসা মনিস্বপন দেওয়ান। এই ৯ প্রার্থী আজ ঢাকায় বিএনপির নির্বাচনী মনোনয়ন বোর্ডের মুখোমুখি হবেন।

এর আগে বিএনপির সর্বশেষ কাউন্সিলে সভাপতি পদে পরাজিত দীপেন দেওয়ানের নেতৃত্বে কিছু নেতাকর্মী পৃথক একটি অংশে বিভক্ত হয়ে দলীয় কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন,যারা বিদ্রোহী হিসেবেই পরিচিত। অন্যদিকে কাউন্সিলে বিজয়ী সভাপতি,সম্পাদক,সাংগঠনিক সম্পাদকের নেতৃত্বে পরিচালিত হচ্ছে মূল জেলা বিএনপির কার্যক্রম। মূল বিএনপির নেতৃত্বেই পরিচালিত হচ্ছে যুবদল,ছাত্রদলসহ বিএনপির সহযোগি সংগঠনসমূহের নেতৃত্ব ও আন্দোলন।

আরো দেখুন

বাঘাইছড়িতে সংঘাতে আহত ১৭

রাঙামাটির দুর্গম বাঘাইছড়ি উপজেলায় আওয়ামীলীগ ও বিএনপির মধ্যে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

twenty − one =