নীড় পাতা / পাহাড়ের অর্থনীতি / কাপ্তাই হ্রদে ২ প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্রে কার্প জাতীয় মাছের ডিম !

কাপ্তাই হ্রদে ২ প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্রে কার্প জাতীয় মাছের ডিম !

দেশের সর্ববৃহৎ কৃত্রিম জলাধার কাপ্তাই হ্রদের কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্র গুলোতে টানা দ্বিতীয় বছরের মতো কার্প জাতীয় মাছের প্রজননকৃত ডিম পাওয়া গেছে। লংগদু উপজেলার ফরেস্ট গার্ড সংলগ্ন কাচালং চ্যানেলে এই কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজননকৃত ডিম সংগ্রহে সফলতা পেয়েছে মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট, রাঙামাটি নদী উপকেন্দ্রের মৎস্য বিজ্ঞানীরা। মৎস্য বিজ্ঞানীদের এই সফলতা কাপ্তাই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের বংশ বিস্তারসহ মাছের সার্বিক উৎপাদন বৃদ্ধিতে নতুন সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন করেছে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিমত।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট, রাঙামাটি নদী উপকেন্দ্রের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এমএ বাশার জানান, কাপ্তাই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের যে কয়েকটি প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্র ছিল তার মধ্যে চেঙ্গী এবং রাইক্ষ্যং চ্যানেলের প্রজনন ক্ষেত্রগুলো বর্তমানে সম্পূর্ণরূপে বিনষ্ট হয়ে গেছে। অপরাপর প্রজনন ক্ষেত্র গুলোর মধ্যে কাচালং এবং কর্ণফুলী চ্যানেলের প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্র গুলো পুনরুজ্জীবিত করার সম্ভাবনা রয়েছে। মূলত এইসব প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্রগুলো হুমকির মুখে থাকায় হ্রদে মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন মৌসুমে কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন আশানুরুপভাবে না হওয়ায় হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের সার্বিক উৎপাদন ক্রমশ কমে আসছে। বিকল্প উপায় হিসাবে হ্রদে বিএফডিসির উদ্যোগে হ্রদে মাছ ধরা বন্ধ মৌসুমে কার্প জাতীয় মাছের পোনা অবমুক্ত করা হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় কম বিধায় কার্প জাতীয় মাছের উৎপাদন এখনো শতকরা ২০ ভাগ পেরুতে পারছে না। এই ক্ষেত্রে কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন নিশ্চিত করা গেলেই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের উৎপাদন আশানুরুপ পর্যায়ে পৌঁছাতে পারবে।

মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের এই উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা জানান, কাপ্তাই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজননের বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য গবেষণা কেন্দ্রের মৎস্য বিজ্ঞানীরা দীর্ঘদিন ধরে গবেষণা চালিয়ে আসছেন। এর মধ্যে ১৯৮৬ সালে এবং ২০০২ ও ২০০৩ সালে কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক মাছের প্রজনন ক্ষেত্রে মাছের প্রজননকৃত ডিম পাওয়া গেলেও পরবর্তী বছরগুলোতে এই প্রজনন ক্ষেত্র হতে আর ডিম পাওয়া যায়নি। পরবর্তীতে গবেষণা কেন্দ্রের মৎস্য বিজ্ঞাণীরা কাচালং ও কর্ণফুলী চ্যানেল দুটিকে মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন এর উপযোগী করার কাজ শুরু করে এবং অনুকুল পরিবেশ সৃষ্টির কাজ করে। এরই প্রেক্ষিতে ২০১৬ সালের ১১ জুন এই দুটি চ্যানেল হতে প্রাকৃতিক প্রজনন কৃত কার্প মাছের ডিম পাওয়া যায়। বিষয়টি মৎস্য বিজ্ঞানীদের মাঝে নতুন আশার আলো সৃষ্টি করে এবং ২০১৭ সালের ২ এবং ৩ মে কাচালং চ্যানেল হতে প্রচুর পরিমাণে কার্প জাতীয় মাছের ডিম পাওয়া যায়। তিনি জানান, মাছ ধরা বন্ধ মৌসুমে কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজননের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার মধ্য দিয়ে কাপ্তাই হ্রদ নিয়ে সকলের মধ্যে উচ্চাশার সৃষ্টি হবে। তিনি ভবিষ্যতে মাছ ধরা বন্ধ মৌসুমটি আরো দীর্ঘায়িত করা হলে এর সুফলতা অধিক হারে পাওয়া যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এদিকে কাচালং চ্যানেলে কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজননকৃত ডিম সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট, রাঙাামাটি নদী উপকেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা কাজী বেলাল উদ্দিন জানান, এই পর্যন্ত উক্ত স্থান হতে ডিম সংগ্রহকারীদের সহযোগিতায় বিশেষ পদ্ধতিতে প্রচুর পরিমাণে কার্প জাতীয় মাছের ডিম সংগ্রহ করা হয়েছে। এটি হালদা নদীতে যে উপায়ে মাছের ডিম সংগ্রহ করা হয় তদ্রুপভাবে করা হয়েছে।

তিনি জানান, সংগ্রহকৃত কার্প জাতীয় মাছের ডিমসমূহ থেকে মাছের রেণু ও পোনা উৎপাদনের জন্য পরবর্তী পদক্ষেপ এবং গবেষণার কাজ করা হবে। সংগ্রহকৃত ডিম লংগদু উপজেলার মারিশ্যাচর হ্যাচারিতে রাখা হচ্ছে এবং সেখানে ডিম থেকে পোনা উৎপাদনের প্রাকৃতিক কাজ সম্পন্ন করা হবে।

কাপ্তাই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজননের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার ফলে কাপ্তাই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের ভবিষ্যৎ উৎপাদনে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিমত। মৎস্য বিজ্ঞানীদের অভিমত কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন এর বিষয়টি এই হ্রদের জন্য নতুন সম্ভাবনার উন্মোচন করবে। কেননা প্রাকৃতিকভাবে মা মাছেরা যে ডিম ছাড়ছে তাতে হ্রদে মাছের উৎপাদন ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাবে। কার্প জাতীয় মাছের পাশাপাশি অন্যান্য প্রজাতির মাছ গুলোও এবছর কাপ্তাই হ্রদে প্রজনন মৌসুমে াণ্যান্য বছরের তুলনায় অধিকহারে ডিম ছাড়ছে বলে তাদের অভিম। উল্লেখ্য, রুই, কাতলা, মৃগেল, কালি বাউশ, সাদা ঘনিয়া প্রজাতির মাছ গুলো কার্প জাতীয় মাছ হিসাবে পরিচিত। সুস্বাদু এই সব মাছের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে ।

আরো দেখুন

‘সুখী ও সমৃদ্ধ দেশ বিনির্মাণে উৎপাদনশীলতা’

‘সুখী ও সমৃদ্ধ দেশ বিনির্মাণে উৎপাদনশীলতা’- এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে সারাদেশের ন্যায় পার্বত্য জেলা …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

1 × 4 =