রাঙামাটিলিড

কাচালং নদীর মা মাছ রক্ষায় ওসির ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

আরমান খান, লংগদু ॥
মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন মৌসুমে মা মাছ রক্ষায় এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে লংগদু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আরিফুল আমিন। জনসচেতনতা বাড়াতে শনিবার বিকালে কাচালং ও মাইনী নদী এলাকায় মাইকিং এবং নদীর পাড়ের স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে বৈঠক করেন ওসি আরিফুল আমিন। এ সময় ওসি বলেন, মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন মৌসুমে কাপ্তাই লেকসহ কাচালং ও মাইনী নদীতে সকল প্রকার মাছ ধরা, পরিবহন ও সংরক্ষণ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এসময় মা মাছ ধরা থেকে সকলকে বিরত থাকতে হবে। একটি মা মাছের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ মাছের পোনা তৈরি হবে। এবং ভবিষ্যতে এ মাছই জেলেদের উপার্জনের উৎস হবে। বন্ধের মৌসুমে মা মাছের প্রজনন বৃদ্ধিতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন ওসি আরিফুল আমিন। এসময় এসআই মোহাব্বত হোসেন, এসআই দয়াল হরি ভৌমিক, এএসআই মাহামুদুল হাসান, সাংবাদিক ওমর ফারুক মুছা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে উপস্থিত জনসাধারণকে মা মাছ না ধরার জন্য শপথ পাঠ করান ওসি আরিফুল আমিন।

কাপ্তাই লেকে মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন মৌসুমে মে হতে জুলাই পর্যন্ত তিন মাস সকল প্রকার মাছ ধরা পরিবহন ও সংরক্ষণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন রাঙামাটি জেলা প্রশাসক। বন্ধের এ মৌসুমে স্থানীয় নিবন্ধিত জেলেদের বিশেষ ভিজিএফ এর মাধ্যমে খাদ্যশস্য প্রদান করা হয়।
গত কয়েক দিনের প্রবল বৃষ্টির কারণে কাচালং ও মাইনী নদীতে ¯্রােত নামতে থাকে। এ সময় স্থানীয় সৌখিন মাছ শিকারিরা ডিমওয়ালা মাছ ধরতে নদীতে নেমে পড়ে ফলে অবাধে নিধন হচ্ছে মা মাছ। মা মাছ নিধন রোধে বিএফডিসি, নৌপুলিশসহ স্থানীয় প্রশাসন নিয়মিত কাজ করছে।

এ বিষয়ে লংগদু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আরিফুল আমিন বলেন, কাপ্তাই লেক এ অঞ্চলের মাছের প্রাকৃতিক উৎস। লেকে দেশি মাছের প্রজনন বৃদ্ধিতে স্থানীয়দের সহযোগিতা প্রয়োজন। আমরা চেষ্টা করছি সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করতে। কাপ্তাই লেকে মাছের প্রজনন বৃদ্ধি হলে স্থানীয় জেলেদের জীবন মানের উন্নয়ন বেগবান হবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button