ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

কঠোর লকডাউন চলছে রাঙামাটিতে,সক্রিয় ভ্রাম্যমান আদালত

রমজানে নিত্যপণ্যের দাম না বাড়ানোর আহ্বান জেলা প্রশাসকের

জিয়াউল জিয়া

পার্বত্য শহর রাঙামাটিতে কঠোরভাবে লকডাউন চলছে। বুধবার সকাল থেকে শহরের একমাত্র গণপরিবহণ অটোরিক্সা (সিএনজি) ও বিপনীবিতানগুলো ছিল বন্ধ।

শহরের তবলছড়ি, বনরূপা, রির্জাভবাজার ও কলেজ গেইট ঘুরে সর্বত্রই লকডাউন সর্বাত্মকভাবেই পালিত হতে দেখা গেছে । তবে কোথাও কোথাও কোথাও কিছু মানুষের অযথা বাহিরে বসে আড্ডা দেয়ার দৃশ্য দেখা গেলেও,তাও খুব বেশি বলা যাবেনা। তবে সেইসব ‘অতিউৎসাহি’দের রুখতে তৎপর দেখা গেছে ভ্রাম্যমান আদালতকে।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুম্পা ঘোষের নেতৃত্বে একটি ভ্রাম্যমান আদালদত মাঠে কাজ করতে দেখা গেছে। এসময় দোকানে মূল্য তালিকা না থাকা, পণ্যের বাড়তি দাম আদায় ও মাস্ক পরিধান না করায় ৮ জনকে ৭ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করা হয়। এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

সকালে লকডাউন ও রমজান উপলক্ষে নিত্যপণ্যের বাজার মনিটরিং করেন রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। এসময় শহরের তবলছড়ি, বনরূপা, রির্জাভবাজার ও কলেজ গেইট কাঁচা বাজার ও মুদি দোকানগুলো পরিদর্শন করেন এবং একই সাথে কোন পণ্য বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে কিনা সেটিও মনিটরিং করেন।

এসময় অরও উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আল মামুন মিয়া, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তাপস রঞ্জন ঘোষ ও নেজারত ডেপুটি কালেক্টর বোরহান উদ্দিন মিঠু।

এ সময় জেলা প্রশাসক পণ্যের মধ্যে তেল, চিনি, পেঁয়াজ, ছোলা, খেজুরসহ নিত্য প্রয়োজনীয় মূল্য স্বাভাবিকে রাখার বিষয়ে ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেন এবং কোন পণ্যের দাম না বাড়ানোর আহ্বান জানান।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, প্রত্যেক বাজার ঘুরে দেখেছি কিছু বাজারে পণ্যের দামে অসঙ্গতি হয়েছে সেটি মোবাইল কোর্ট দেখছে এবং কারন খোঁজার চেষ্টা করবে। সব কিছু মিলে কঠোর ভাবে লকডাউন পালন হচ্ছে। বিনা প্রয়োজনে কেউ যাতে ঘর থেকে বের না হয় সেটি সবার প্রতি অনুরোধ রাখছি। একটি সপ্তাহ কষ্ট করলে বাকিদিনগুলো ভালোভাবে সবাই মিলে একসাথে সময় কাটাতে পারবেন। আর একটি দিক হলো যারাই প্রয়োজনে বের হচ্ছে প্রায় মুখে মাস্ক ছিল। প্রয়োজনে বের হওয়াতে কোন নিষেধ নেই। বের হলে অবশ্যই মাস্ক পরিধান ও অনুসরন করুন।

 

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button