ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

এবার বিদায় নিলেন পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান

রাঙামাটি থেকে পুলিশ সদর দপ্তরে এআইজি পদে বদলির নির্দেশপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসানের সাথে রাঙামাটির সংবাদকর্মীদের বিদায়ী মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে রাঙামাটি পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করে রাঙামাটি জেলা পুলিশ।

বিদায়ী পুলিশ সুপারের সাথে সংবাদ কর্মীদের মতবিনিময় সভায় পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন রুবেল। তিনি বলেন, আমাদের জ্ঞান কিন্তু সীমিত, তারপরও আমরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছি, এতে ভুল ত্রুটি থাকতেই পারে। দিন দিন পুলিশ যে জনবান্ধব হয়ে উঠছে তা আমরা রাঙামাটির সম সাময়িক বিভিন্ন ঘটনা যেভাবে আপনি সহ মাঠে থেকে সমাধান করেছেন তা থেকে আমরা প্রমাণ পাচ্ছি।

রাঙামাটি প্রেস ক্লাসের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক বলেন, স্বাভাবিকভাবে আমরা রাঙামাটিতে পুলিশ সুপারদের দুই এক বছরের বেশি দায়িত্ব পালন করতে দেখি নাই। কিন্তু আপনি দায়িত্ব পালন করেছেন তিন বছর তিন মাস। এর আগে হয়তে আপনার চেয়ে বেশি সময় পুলিশ সুপারের দায়িত্ব পালন করেছেন একজন পুলিশ সুপার রাঙামাটিতে। আমার দেখা মতে আপনিই প্রথম পুলিশ সুপার যিনি নিজেই মাঠ পর্যায়ে গিয়ে সমস্যা সমাধান করেছেন। আপনি দায়িত্ব নেয়ার পর পরই রাঙামাটি মেডিকেল কলেজ স্থাপন নিয়ে রাঙামাটিতে যে সংঘাত সৃষ্টি হয়েছিল তা খুব দক্ষতার সাথে সমাধান করেছেন, রাঙামাটির স্বাভাবিক পরিস্থিতি বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছেন। মাদকের বিরুদ্ধে আপনি যতটুকু কাজ করেছেন তা অন্য কোন সময় হয়নি। তার সুফল রাঙামাটির মানুষ পাচ্ছে।

চ্যানেল ২৪ এর রাঙামাটি প্রতিনিধি শামসুল হক বলেন, কিছুদিন আগে সরকার দলের সমর্থকদের সাথে আপনার কিছুটা সমস্যা হলেও আমি জানি ঐদিন যদি আপনি ত্বরিত ব্যবস্থা না নিতেন তাহলে ঐদিন রাঙামাটিতে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি হতো। আমরা যেভাবে খবর পাচ্ছিলাম বিভিন্ন জায়গায় গুজব ছড়িয়ে পড়ছে তা আসলেই নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন ছিল। তার মাঝখানে আগুন গুজবকে আরো বেশি প্রসারিত করেছিল। যা আপনার প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানেই নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে। আর আপনাকে যখনই রাত বিরাতে ফোন দিতাম আপনি কোন সময় বিরক্ত বোধ করেননি, যা আমাকে সব সময় মুগ্ধ করেছে। আমরা দেখেছি আপনি লংগদু, বিলাইছড়ির ঘটনাকেও আপনি প্রসারিত হতে দেননি। ভিন্ন খাতে মোড় নিতে দেননি। রাঙামাটির সমস্যাগুলো আপনি অনেক সহজ ভাবে সমাধান করেছেন।

বিদায়ী পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান বলেন, রাঙামাটি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা নিয়ে রাঙামাটিতে বিভিন্ন সংঘাত হলেও তা কাটিয়ে উঠে রাঙামাটির উচ্চ শিক্ষার জন্য রাঙামাটি মেডিকেল কলেজ এবং রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা এবং ক্লাস চালু আমার দায়িত্ব পালনকালেই হয়েছে। যা আমি মনে করি আমার বড় অর্জন।

এই সময় তিনি আরো বলেন, রাঙামাটির সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো গুজব। যা রাঙামাটির সাম্প্রদায়িক সংঘাত সৃষ্টিকে উস্কে দেয়। আমি আশা করি রাঙামাটিতে কর্মরত সংবাদকর্মীরা সঠিক ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রচারের মাধ্যমে সকল গুজবকে কাটিয়ে উঠে, সব সময় রাঙামাটির শান্তি বজায় রাখতে সহায়তা করে যাবে পুলিশ প্রশাসনকে।

এসময় রাঙামাটিতে কর্মরত সংবাদকর্মীরা ছাড়াও সভায় উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রুহুল আমিন সিদ্দিকী, রাঙামাটি সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর হোসেন, কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা সত্যজিৎ বড়–য়া সহ প্রমুখ।

মতবিনিময় সভা শেষে বিদায়ী পুলিশ সুপার উপস্থিত সাংবাদিকদের সাথে হাত মিলিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

MicroWeb Technology Ltd

এই বিভাগের আরো সংবাদ

১টি কমেন্ট

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: