রাঙামাটিলিড

উদ্ধারে গিয়ে প্রাণ হারালেন রাঙামাটির সন্তান দুই ফায়ার কর্মী

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥
চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে ভয়াবহ কন্টেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণের ঘটনায় রাঙামাটির দুই ফায়ার সার্ভিস কর্মী মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এরা হলেন মিঠু দেওয়ান(৫০) ও নিপন চাকমা। তবে এদের মধ্যে মিঠু দেওয়ানের মরদেহ শনাক্ত করতে পারলেও নিপন চাকমার মরদেহ এখনো শনাক্ত করতে পারেনি তাঁর স্বজনরা। এই ঘটনায় সাত জন ফায়ার সার্ভিস সদস্যের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিসের তথ্যমতে, শনিবার (৪ জুন) দিবাগত রাতে চট্টগ্রামের সীতাকু-ের বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ আগুনের এ ঘটনা ঘটে। খবর জানতে পেয়ে পর্যায়ক্রমে ফায়ার সার্ভিসের চট্টগ্রাম ও আশপাশের সকল ফায়ার স্টেশন ঘটনাস্থলে ছুটে যান। দুর্ঘটনার একপর্যায়ে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটলে ফ্রন্টলাইনে কাজ করা কর্মীরা গুরুতর আহত হয়। এরমধ্যে ৭ জন কর্মীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। আরও বেশ কয়েকজন কর্মী চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল-সিএমএইচসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর রাঙামাটি সহকারী পরিচালক মো. রফিকুল ইসলাম জানান, এই ঘটনায় আমাদের মারা যাওয়া সদস্যদের পুড়ে যাওয়ার কারণে কারো মরদেহ শনাক্ত করা যাচ্ছে না। তবে আগুন নেভানোর কাজে মিঠু দেওয়ান ও নিপন চাকমা দায়িত্বরত ছিলেন এবং তাদের সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ করা সম্ভব হচ্ছে না। তাই ধারণা করা হচ্ছে উদ্ধার হওয়া মরদেহগুলোর মধ্যে তারাও রয়েছে। তাদের পরিবারের সদস্যরা সেখানে গেছেন। হয়তো ডিএনএ পরীক্ষা শেষে তাদের শনাক্ত করা সম্ভব হবে এবং তারা মারা গেছেন কিনা তাও নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। তিনি জানান, মিঠু দেওয়ান ফায়ার সার্ভিস কুমিরা শাখা আর নিপন চাকমা সীতাকু- শাখায় লিডার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। মিঠু দেওয়ান রাঙামাটি জেলা শহরের পশ্চিম ট্রাইবেল এলাকার বাসিন্দা ও নিপন চাকমা কলেজ গেইট এলাকার বাসিন্দা।

মিঠু দেওয়ানের ভাই টিটু দেওয়ান বিকেল চারটায় জানান, ফায়ার সার্ভিস অফিস থেকে খবর দেয়ার পর আজ(রবিবার) সকালে আমার ছোট ভাই ও খালা চট্টগ্রাম মেডিকেলে গেছে। ফায়ার সার্ভিসের এক সদস্য আমাকে একটি ছবি পাঠিয়েছে, আমিও বলেছি এটাই আমার ভাই। আমার ভাইও তাকে শনাক্ত করতে পেরেছে। পরবর্তী কার্যক্রম শেষে তাকে রাঙামাটি নিয়ে আসা হবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eight + 17 =

Back to top button