ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

ইউপি সদস্য রিটন বড়ুয়ার বিরুদ্ধে অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ

পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে স্থানীয় এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মাদক, সন্ত্রাস ও অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শনিবার দুপুরে রাঙামাটি শহরের একটি রেষ্টুরেন্টে ‘সাপছড়ির এলাকাবাসী’ ব্যানারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ অভিযোগ করে একটি পরিবার।

অভিযুক্ত রিটন বড়ুয়া রাঙামাটি সদর উপজেলার ৩নং সাপছড়ি ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড সদস্য। এছাড়াও সে সাপছড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি।

সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী পরিবার দাবি করেন, ‘একজন জনপ্রতিনিধি হয়েও দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মাদক, সন্ত্রাস ও অসামাজিক কাজকে প্রশ্রয় দিচ্ছেন ইউপি সদস্য রিটন বড়ুয়া। দীর্ঘদিন যাবৎ ইউপি সদস্য রিটন বড়ুয়া ওই এলাকার যুবকদের নিজ বাড়িতে নিয়ে মদ্যপান করে থাকেন। গত কয়েকদিন ধরে ওই এলাকার বাসিন্দা ও গাড়িচালক ওসমান গণিও তার বাসায় গিয়ে মাদকদ্রব্য গ্রহণ করছেন।’

“এর আগেও একই কারণে ওসমান গণি তার বাসায় গিয়ে মাদকদ্রব্য গ্রহণ করতেন। পরবর্তীতে ওসমান গণিকে মাদকসক্ত নিরাময় কেন্দ্রেও পাঠায় তার পরিবার। দীর্ঘদিন পর ওসমান গণি স্বাভাবিক জীবনে ফিরলেও ইউপি সদস্য রিটন বড়ুয়া আবারও ওসমান গণিসহ এলাকার অন্যান্যদের মাদক, সন্ত্রাস ও অসামাজিক কাজে লিপ্ত করছেন।”- অভিযোগ করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে ওসমান গণির ছেলে মো. শামিম ও ওসমান গণির ভাই মো. সেলিম ও মো. সোলায়মান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে এসব কার্যক্রমের অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ইউপি সদস্য রিটন বড়ুয়া বলেন, ‘আমি ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতির দায়িত্বে আছি। সামনে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কাউন্সিল হওয়ার কথা রয়েছে। এবার কাউন্সিলে আমি ইউনিয়ন আওয়ামীলেিগর সভাপতি প্রার্থী হব। তাই ছাত্রদল, যুবদলের ছেলেদের নিয়ে নব্য আওয়ামীলীগের লোকজন আমার বিরদ্ধে এমন কথা রটাচ্ছে। আমার বিরদ্ধে তাদের আনিত অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন।’

এ বিষয়ে ৩নং সাপছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মৃনাল কান্তি চাকমা বলেন, ‘রিটন বড়ুয়ার বিরুদ্ধে এ ধরণের কোনো কথা আমি শুনিনি। এ বিষয়ে আমাকে কেউ কিছুই জানায়নি।’

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button