ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

‘আওয়ামীলীগ যে দাবি তুলেছে তা যৌক্তিক দাবি’

গত ৫ ডিসেম্বর সকালে নানিযারচরে ইউপিডিএফ’র সমর্থক অরবিন্দু চাকমাকে গুলি করে হত্যা, জুরাছড়িতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অরবিন্দ চাকমাকে গুলি করে হত্যা , বিলাইছড়িতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি রাসেল মারমাকে হত্যাচেষ্ঠা ও জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ঝর্ণা খীসাকে হত্যা চেষ্টা নিয়ে সাংবাদিকদের কাছে খোলামেলা কথা বলেছেন রাঙামাটির পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান। তার বক্তব্যের চুম্বক অংশ আমাদের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

আপনারা যেখানে যে তথ্য পাবেন তা আমাদেরকে (পুলিশ) জানাবেন। আমি বাংলাদেশের নাগরিক ,আপনারা বাংলাদেশের নাগরিক। আমার আপনার যে কোন জায়গায় যাওয়ার নিরাপত্তা আছে। আর তার নিরাপত্তা সরকার নিশ্চিত করবে, পুলিশ নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।
পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান আরো বলেন, নানিয়ারচরের অরবিন্দু চাকমা বিহারে যাওয়ার পথে তাকে কয়েকজন যুবক হামলা করে হত্যা করেছে এবং বিলাইছড়ি ও জুরাছড়িতেও একই ধরণের ঘটনা ঘটেছে। এ ধরনের ঘটনা কোন ভাবেই গ্রহনযোগ্য না, কাঙ্খিত না। আমরা একটি স্বাধীন ও সার্বভৌমত্ব দেশে বসবাস করি। সে দেশের কোথায় এ ধরনের ঘটনা ঘটলে সবাই চুপ কওে না থেকে আরো সোচ্চার হতে হবে।
আটককৃত আসামীরা কোন সংগঠনের সদস্য কিনা জানতে চাইলে এসপি বলেন, যারা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তারা অপরাধী। এদের কার সাথে সম্পৃক্ততা আছে, কার সঙ্গে নেই তা এ ধরনের কোন বিষয়ে আমাদের মাথা ব্যথা নেই। আমাদের কাজ হচ্ছে যারা অপরাধ করেছে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা ।
এ পর্যন্ত কতজনকে আটক করা হয়েছে এই প্রশ্নের জবাবে সাঈদ তারিকুল হাসান বলেন, এখন পর্যন্ত মোট চারটি মামলা হয়েছে। মোট ১৪ জন আসামীকে ধরা হয়েছে।
পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্র আছে কিনা এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, পাহাড়ে কোন ভাবেই অবৈধ অস্ত্র থাকার সুযোগ নেই। আওয়ামীলীগ যে দাবি তুলেছে তা যৌক্তিক দাবি। অবৈধ অস্ত্র যদি থাকে তা আমরা অবশ্যই উদ্ধার করবো।
অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের বিষয়ে আপনাদের অভিযান চলবে কিনা এই প্রশ্নের জবাবে তারিকুল বলেন, সেনাবাহিনী, বিজিবি ও বাংলাদেশ পুলিশ সবাই মিলে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে এ অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। কিন্তু সব সময়তো অস্ত্র উদ্ধার হয় না। এমনও সময় গেছে একসাথে ষোলটি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।
নতুন রাজনৈতিক দল ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক)’র আবির্ভাবের বিষয়ে এসপি বলেন, রাজনৈতিক দল যে কেউ করতেই পারে, এটা আমাদের সংবিধানের সাংবিধানিক অধিকার। তাদের মনে হয়েছে তারা একটি দল তৈরি করেছে । এ রকম থাকতেই পারে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

ি কমেন্ট

  1. অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের পাশাপাশি অবৈধ অস্ত্র ব্যবহারকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়ে সাজা নিশ্চিত করতে হবে । পার্বত্য অঞ্চলে সকলের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান চাই , অস্ত্র নয় ।

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: