ব্রেকিংরাঙামাটি

‘অপসাংবাদিকতা’র প্রতিবাদ সৈকত রঞ্জন চৌধুরী’র

সম্প্রতি রিপন চাকমা কর্তৃক আনীত অভিযোগকে ঘিরে দুইটি অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের একটি খন্ডকালিন প্রকল্পে কর্মরত সংবাদকর্মী সৈকত রঞ্জন চৌধুরী।

সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে সৈকত জানিয়েছেন, রিপন চাকমা এবং তিনি ঘনিষ্ঠ সাবেক রাজনৈতিক সহকর্মী এবং দুইজনের ব্যক্তিগত একটি দেনাপাওনাকে কেন্দ্র করে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টির কারণে একটি জটিলতা তৈরি হয়। এর সুযোগ নিয়ে জামাত সমর্থিত হিসেবে চিহ্নিত রাঙামাটির দুটি অনলাইন পত্রিকা আমার পুরনো রাজনৈতিক পরিচয়কে টেনে এনে বিষয়টিকে ঘোলা করার চেষ্টা করে। অথচ অভিযোগকারি নিজেই অভিযোগ ও মামলা প্রত্যাহার করে নেয়ার পাশাপাশি,বিষয়টি নিছক ভুল বোঝাবুঝি বলেও জানিয়েছে। কিন্তু অনলাইন পত্রিকাটি দুটি ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক আক্রোশের বশবর্তী হয়ে পুরো বিষয়টি নিয়ে ‘অপসাংবাদিকতা’য় মেতে উঠে। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

সৈকত রঞ্জন চৌধুরী বিবৃতিতে আরো বলেন, জামাতি ভাবধারার অনলাইন পত্রিকা দুটি আমার পুরনো রাজনৈতিক পরিচয়কে টেনে আনার মাধ্যমে প্রমাণ করেছে কি অসৎ ও হীন উদ্দেশ্যে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এই সংবাদ পরিবেশন করেছে তারা। একটি ব্যক্তিগত বিষয়ে গণজাগরণ মঞ্চ এবং ছাত্র ইউনিয়ন পরিচয় টেনে আনার মাধ্যমেই তাদের রাজনৈতিক অভিলাষ চরিতার্থ করার অপচেষ্টা রাঙামাটিবাসি অবহিত হয়েছে। একই সাথে ওই অনলাইন দুটির সংবাদকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যবহার করে উস্কানি সৃষ্টির পাঁয়তারা করেছে, জামাত পরিবার থেকে বর্তমানে ক্ষমতাসীন দলের সহযোগি সংগঠনের নেতা হওয়া কিছু ব্যক্তি ও রাঙামাটির জামাত শিবির নেতাকর্মীরা। সুতরাং সংশ্লিষ্টরা আমার পুরনো রাজনৈতিক পরিচয় ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিরুদ্ধে অবস্থানকে প্রতিপক্ষ হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে এই অপকর্মটি করেছে,তা প্রমাণিত।

আমি দৃঢ়তার সাথে বলতে চাই, উক্ত অনলাইন দুটিতে প্রকাশিত সংবাদ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করে অপসাংবাদিকতার একটি নির্লজ্জ প্রয়াস। আমি ঘৃণাভরে তাদের এই অপকর্মকে প্রত্যাখ্যান করছি।’

ব্যক্তিগত বিষয়কে রাজনীতিকায়ন করায় বিস্ময় রিপন চাকমার
এদিকে সৈকত রঞ্জন চৌধুরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা রিপন চাকমা পৃথক এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, সৈকতের সাথে তার ব্যক্তিগত দেনা পাওনার বিরোধটি আলোচনার মাধ্যমে নিষ্পত্তি হয়েছে। এনিয়ে কোন অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, সৈকতের বিরুদ্ধে আমার কোন অভিযোগ নেই,আমি মামলাও প্রত্যাহার করে নিয়েছি এবং লিখিতভাবে তার বিরুদ্ধে আমার কোন অভিযোগ নেই ।

এই বিষয়ে পাহাড়টোয়েন্টিফোর ডট কমকে সৈকত রঞ্জন চৌধুরী জানিয়েছেন, আমি পুরনো রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের নির্লজ্জ অপসাংবাদিকতার শিকার। রাজনৈতিক স্বার্থে সাংবাদিকতার কদর্য ব্যবহারের নোংরা প্রমাণ হয়ে থাকবে এ ঘটনা। এর বিরুদ্ধে তিনি আইনী পদক্ষেপ নিবেন জানিয়ে বলেন, আমি নিজে একজন সংবাদকর্মী হয়েও এই ধরণের নোংরামির শিকার হলাম ,এত সহজে ছাড় দিবোনা এর সাথে জড়িতদের।

অন্যদিকে রিপন চাকমাও পাহাড়টোয়েন্টিফোর ডট কমকে জানিয়েছেন, আমাদের ব্যক্তিগত ভুলবোঝাবুঝিকে এইভাবে রাজনৈতিক রং মাখিয়ে নোংরামি করা হবে এমনটা আমি ভাবিনি। আমরা নিজেরাই আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করেছি। আশা করছি নোংরামি ও ক্ষতি করার অপচেষ্টা বন্ধ করা হবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

ি কমেন্ট

  1. রিপন চাকমা এখন সাধু সাজতে চাচ্ছে।
    আলোচনার মাধ্যেমে সমাধান তো আগেই করা যেতো। তাহলে মামলা করা হলো কেন?

    মামলার পর দুই পক্ষ রফাদফা করে এখন একই সুরে কথা বলছে।
    আরো একমাস আগের সংবাদ। এই সময়ে দুই পক্ষ এক হয়েছে। তাই এতোদিন পরে প্রতিবাদ জানাচ্ছে। যদি ব্যাক্তিগত পর্যায়ের ঝামেলা হতো তাহলে ওই সংবাদ প্রকাশের সাথে সাথে প্রতিবাদ করা হলোনা কেন?

    বলা হচ্ছে তার রাজনৈতিক ইতিহাস টেনে আনা নোংরামি ছিলো। তাহলে সৈকত রঞ্জন এখন ওই সাংবাদিকদের পরিবারের রাজনৈতিক ইতিহাস টেনে আনলো কোন নোংরামির জন্য?

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: