রাঙামাটি

অনলাইনে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছেন কাপ্তাইয়ের শিক্ষক তানি

মোঃ নজরুল ইসলাম লাভলু, কাপ্তাই ॥
কোভিড-১৯ সংক্রমণের ফলে দীর্ঘ প্রায় ১১ মাস স্কুল, কলেজসহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। কিন্তু সরকারি নির্দেশ মোতাবেক শিক্ষকরা অনলাইনে পাঠদান কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় লগডাউনের পর থেকেই নিয়মিত অনলাইনে পাঠদান দিয়ে যাচ্ছে কাপ্তাইয়ের চন্দ্রঘোনা ব্যাপ্টিস্ট মিশন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক রওশন শরীফ তানি। তিনি তার বাসায় বসেই নিয়মিত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিভিন্ন শ্রেণীর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পাঠদান দিয়ে যাচ্ছেন। শুধুই পাঠদান নয়, ছোট ছোট কোমলমতি শিশুদের লেখাপড়ার পাশাপাশি তিনি প্রতিনিয়ত গান, কবিতা, গল্প বলাসহ শিক্ষার্থীদের মেধা ও মননের বিকাশ সাধনের জন্য সহ-পাঠ্যক্রমিক ক্লাসসমূহ পরিচালনা করছেন। এতে সারাদেশ থেকে বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যুক্ত হয়েছেন।

বর্তমানে তাদের কাছে শিক্ষক রওশন শরীফ তানি একজন প্রিয় শিক্ষক হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। ঘরে বসেও এই কোমলমতি শিশুরা প্রতিদিন নিয়মিত ক্লাসে অংশগ্রহণের পাশাপাশি তাদের বাড়ির কাজগুলো করে শিক্ষক রওশন শরীফ তানির নিকট পাঠান। এবং তিনি সেই কাজগুলো যাচাই করে তাদের ফিডব্যাক প্রদান করে থাকেন।

শিক্ষক রওশন শরীফ তানির সাথে এই প্রতিবেদকের কথা হলে তিনি জানান, করোনাকালীন সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে স্থবির হয়ে পড়লেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী অনলাইন ক্লাসের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। লগডাউনের শুরু থেকেই তিনি তাঁর বাসার একটি রুম শিক্ষার্থীদের পাঠদানের জন্য মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুমে সাজিয়ে তোলেন। এরপর তিনি রাত-দিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে প্রাইমারির বিভিন্ন শ্রেণীর বিভিন্ন বিষয়ের উপর পাঠদান কার্যক্রমের ভিডিও প্রস্তুত করেন।

সেই সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, জুম এ্যাপস, স্ট্রিম ইয়ার্ড, গুগল মিটসহ বিভিন্ন অ্যাপসের সহায়তায় লাইভ পাঠদান কার্যক্রমও পরিচালিত করেছেন। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে তিনি তার ধারণকৃত পাঠদান কার্যক্রমের ভিডিওগুলো তার ইউটিউব চ্যানেলে এবং শিক্ষার্থীদের নিয়ে তৈরি করা বিভিন্ন ম্যাসেঞ্জার গ্রুপে আপলোড করেছেন। এতে তিনি শিক্ষার্থীদের ব্যাপক সাড়া ও পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন। তার এই অনলাইন পাঠদান কার্যক্রম রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলা ছাড়িয়েও দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। যার ফলে দেশের বিভিন্ন উপজেলার শিক্ষার্থীরাও তাঁর এই অনলাইন ক্লাসে যুক্ত হয়ে নিয়মিত ক্লাসে অংশগ্রহণ করে যাচ্ছে।

তিনি আরো জানান, তার নিজস্ব অনলাইন ক্লাসের পাশাপাশি তিনি বাংলাদেশ অনলাইন প্রাইমারি স্কুল, ইনেসিয়েটিভ ফর অনলাইন প্রাইমারি স্কুল, প্রাথমিক শিক্ষা পরিবার সারা বাংলা, শিক্ষকের কলাম, শিক্ষার আলো.কম, রাঙামাটি অনলাইন স্কুল, পিইসিই অনলাইন প্রাইমারি স্কুল, টিচার্স ড্রিম অনলাইন এডুকেশন, বাংলাদেশ আলোকিত প্রাথমিক শিক্ষক, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিকল্পনায় এবং এটুআই এর বাস্তবায়নে ঘরে বসে শিখিসহ বিভিন্ন অনলাইন পেইজে অংশ নিয়ে তিনি পাঠদান কার্যক্রম পরিচালিত করছেন।

উল্লেখ্য, শিক্ষক রওশন শরীফ তানি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর জাতীয় শিক্ষা পদক ২০১৯ এর চট্টগ্রাম বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ সহকারি শিক্ষিকা হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়াও তিনি তার কর্ম দক্ষতার মাধ্যমে ইতোমধ্যে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছেন। বাংলাদেশ গ্লোবাল ট্রেইনার একাডেমির সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পাশাপাশি তিনি জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড আয়োজিত বিভিন্ন কর্মশালায় তথ্যজ্ঞ ব্যক্তি হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়া শিক্ষক রওশন শরীফ তানি সম্প্রতি শিক্ষক বাতায়ন রাঙামাটি জেলার ‘আইসিটি ফোর ই’ জেলা এম্বাসেডর হিসেবে মনোনীত হয়েছেন। শিক্ষক রওশন শরীফ তানি শিক্ষকতার পাশাপাশি একজন গুণী সঙ্গীত শিল্পী ও উপস্থাপিকা হিসেবে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সাংস্কৃতিক মঞ্চের একজন শিল্পী হিসেবে জাতীয় পর্যায়ের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছেন। এছাড়া তিনি জানান, ইতিমধ্যে তিনি অনলাইনে প্রায় ২ শত ক্লাস পরিচালনা করে রেকর্ড করেছেন এবং বিভিন্ন অনলাইন স্কুল থেকে সনদপ্রাপ্ত হয়েছেন।

এদিকে, করোনাকালীন সময়ে শিক্ষার আলো ছড়াতে শিক্ষক রওশন শরীফ তানির ভূমিকা সুধীমহলে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। ক্লাসে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা জানান, তাদের সন্তানেরা করোনাকালীন সময়ে গৃহবন্দী হয়ে থাকলেও শিক্ষক রওশন শরীফ তানির ক্লাস গুলো তাদের জন্য ব্যাপক অবদান রেখেছে। শিক্ষার্থীরা অত্যন্ত উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে প্রতিনিয়ত শিক্ষক রওশন শরীফ তানির অনলাইন ক্লাসগুলোতে অংশগ্রহণ করেছে। এজন্য অনেক অভিভাবক শিক্ষক রওশন শরীফ তানিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

শিক্ষক রওশন শরীফ তানি জানান, শিক্ষকতা পেশার প্রতি শ্রদ্ধা ও দায়বদ্ধতা এবং শিক্ষার্থীদের প্রতি আন্তরিকতা ও ভালবাসা থেকেই তিনি তার করোনাকালীন অবসর সময়টি অনলাইনের বিভিন্ন কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত থেকে অতিবাহিত করেছেন। তিনি আরো বলেন, করোনা পরিস্থিতি ভালো হওয়ার পর স্কুল খোলা হলেও তার এই অনলাইনে পাঠদান কার্যক্রম একইভাবে অব্যাহত রাখবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button