ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

অতপর মামলা খেয়েই জেলা পরিষদ ছাড়লেন প্রকৌশলী উজ্জ্বল

বদলি করার পরও কর্মস্থলে যোগ না দেয়া ও বদলি ঠেকাতে কর্তৃপক্ষের ওপর চাপ প্রয়োগসহ প্রশাসনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে রাঙামাটিতে এক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করেছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডি)। রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের প্রকৌশলী উজ্জ্বল কান্তি দেওয়ানের বিরুদ্ধে এই বিভাগীয় মামলা দায়ের করা হয়। তিনি এলজিইডি থেকে গত ১৩ বছর ধরে প্রেষণে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদে কর্মরত আছেন। গত ৫ জুলাই এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী আব্দুর রশীদ খান এক পত্রের মাধ্যমে মামলার আদেশ দেন।

এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী আব্দুর রশীদ খান স্বাক্ষরিত পত্রে উল্লেখ করা হয়, গত ৩ মার্চ রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ হতে প্রেষণাদেশ প্রত্যাহারপূর্বক উপ-সহকারী প্রকৌশলী উজ্জ্বল কান্তি দেওয়ানকে জুরাছড়ি উপজেলা প্রকৌশলী দপ্তরে বদলি করা হয়। এবং পরবর্তীতে ২৫ মার্চ বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদানের নিমিত্তে গত ৬ এপ্রিল হতে তাঁকে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়। কিন্তু এরপরও প্রকৌশলী উজ্জ্বল কান্তি দেওয়ান কর্মস্থলে যোগ দেননি।

এদিকে গত ২৪ জুন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী মো. আব্দুর রশীদ খান স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে বলা হয়, ‘এলজিইডির সর্বস্তরের কাজের গতিশীলতা, জনবলের সুষম বণ্টন, ভিন্ন ভিন্ন পদে কাজের অভিজ্ঞতা অর্জনের মাধ্যমে দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ও প্রশাসনিক কারণে জনস্বার্থে সদর দফতর ও মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বদলি করা হয়ে থাকে। কিন্তু লক্ষ্য করা যাচ্ছে, বদলিকৃত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বদলির আদেশ প্রদানকৃত কর্মস্থলে যোগদান না করে আদেশ পরিবর্তন, বদলানো, সংশোধন ও বাতিলের জন্য বিভিন্ন মহল হতে তদবির করে প্রশাসনিক জটিলতা সৃষ্টি করছেন; যা সরকারি কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা ১৯৭৯ পরিপন্থী। এমনকি তাৎক্ষণিক বদলিকৃত (স্ট্যান্ড রিলিজ) কোনও কোনও কর্মকর্তা-কর্মচারীও জারিকৃত বদলি আদেশের নির্ধারিত তারিখে যোগদান না করে বদলির আদেশ বাতিল বা যুক্তিসঙ্গত সময় অতিবাহিত হওয়া সত্তে¡ও নতুন কর্মস্থলে যোগদান হতে বিরত থাকেন এবং বদলির আদেশ বাতিলের জন্য আবেদন ও কর্তৃপক্ষের ওপর বিভিন্নভাবে অযৌক্তিক চাপ সৃষ্টি করে শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেন।

এমতাবস্থায়, কর্তৃপক্ষ কর্তৃক জারিকৃত সকল বদলির আদেশ মোতাবেক সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীকে অব্যাহতি গ্রহণপূর্বক বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদান করার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো। ব্যত্যয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তার নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ এর ৩ (খ) মোতাবেক অসদাচরণের কারণে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

তারই প্রেক্ষিতে এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী আব্দুর রশীদ খান স্বাক্ষরিত পত্রে উজ্জ্বল কান্তি দেওয়ানের বিরুদ্ধে কর্মস্থলে যোগদান ছাড়াও আরো তিনটি বিষয় উল্লেখ করেন। বিষয়গুলো হলো-তিনি বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদান না করে বদলির আদেশ বাতিলের জন্য কর্তৃপক্ষের উপর বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করে প্রশাসনিক জটিলতা সৃষ্টি করেছেন। তিনি কর্তৃপক্ষের ন্যায়সঙ্গত আদেশ অমান্য করে বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদান না করায় জুরাছড়ি উপজেলায় এলজিইডি কর্তৃক গৃহীত উন্নয়নমূলক কাজ বাস্তবায়নে বিঘেœর সৃষ্টি হচ্ছে এবং তার উপর্যুক্ত কার্যকলাপ সরকারি কর্মচারী(শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ২০১৮ এর ৩(খ) বিধিতে বর্ণিত অসদাচরণের পর্যায়ভুক্ত অপরাধ।

এদিকে মামলার বিষয়ে উপ-সহকারী প্রকৌশলী উজ্জ্বল কান্তি দেওয়ানের (০১৮৫২২৬৬৭৯৭, ০১৮১৪১৯১৯৭২) মুঠোফোনে একাধিকবার কল দেয়ার পরও বন্ধ পাওয়া যায়।

এই বিষয়ে জুরাছড়ি উপজেলা প্রকৌশলী মতিউর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, গত ৯ জুলাই উজ্জ্বল কান্তি দেওয়ান জুরাছড়িতে যোগদান করেছেন। এরপর আজকে(রবিবার) কল দিয়ে জানিয়েছেন, উনি আগামীকাল(সোমবার) অফিসে আসবেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button