রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মাসিক সভায় বৃষ কেতু

সমন্বয় না থাকলে উন্নয়ন সম্ভব নয়


নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশের সময়: জানুয়ারী 23, 2018

সমন্বয় না থাকলে উন্নয়ন সম্ভব নয়

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভা সোমবার সকালে অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সভাকক্ষে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা। পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য এবং হস্তান্তরিত বিভাগের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেছেন, যে কোন জেলার সামগ্রিক উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করতে সকলের সমতা প্রয়োজন। তিনি বলেন, সমন্বয় না থাকলে উন্নয়ন সম্ভব নয়। তাই প্রতিটি সভায় পরিষদের হস্তান্তরিত বিভাগের সকল কর্মকর্তাকে উপস্থিত থেকে পরামর্শ প্রদান করতে হবে। তিনি বলেন, সরকার আমাদের নিয়োগ দিয়েছেন জনকল্যাণের স্বার্থে। তাই সমন্বয় ঘটিয়ে এ এলাকার জনগনের স্বার্থে আমাদের কাজ করে যেতে হবে।

সভায় স্বাস্থ্য বিভাগের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ নীহার রঞ্জন নন্দী বলেন, রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতাল ও বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদের বিষয়ে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের এখতিয়ারাধীনে রয়েছে। এছাড়া গত ০২ জানুয়ারি বর্তমান সরকার রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালের জন্য একটি নতুন এম্বুলেন্স প্রদান করেন। অন্যদিকে জেনারেল হাসপাতালে সকল স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক পবন কুমার চাকমা জানান, কাপ্তাই হ্রদের পানি সময় মতো না কমায় গত বছরের তুলনায় এ বছর বোরো আবাদ কম হয়েছে। আশা রাখছি আগামী মাসে হ্রদের পানি কমবে। এছাড়া রাসায়নিক সারের মজুদ রয়েছে। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রওশন আলী বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের শিক্ষক নিয়োগে প্রার্থীদের আবেদন বাছাই সম্পন্ন হয়েছে। আগামীতে নিয়োগ পরীক্ষার কার্ড ছাড়া হবে।

জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তা মনোরঞ্জন ধর বলেন, গত ২০ থেকে ২৫ জানুয়ারি প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ চলছে। এছাড়া চিকিৎসা ও প্রোডাকশন কার্যক্রম যথারীতি চলছে।

বিসিক-কুটির শিল্প উন্নয়ন কর্মসূচির সহকারী সহঃ মহা ব্যবস্থাপক স্বপন কুমার ত্রিপুরা জানান, কুটির শিল্প উন্নয়ন কর্মসূচির মধ্যে বিভিন্ন মেয়াদে তাঁতে বস্ত্র বুনন, পোশাক সেলাই, বাঁশ বেতের পন্য তৈরি, কাঠের কাজ, বাটিক ছাপা, কম্পিউটার ফান্ডমেন্টাল ও প্লাস্টিক ব্যাগ এবং পুঁতি শিল্প তৈরির প্রশিক্ষণ চলছে।

ক্রীড়া কর্মকর্তা স্বপন কিশোর চাকমা জানান, জেলার জুরাছড়িতে মাসব্যাপী ভলিবল, ও সদর উপজেলায় মোনঘর আবাসিক উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন কাপ্তাই জলাধারে ১৩ নভেম্বের ২০১৭ হতে ৭ জানুয়ারী ২০১৮ পর্যন্ত সাঁতার প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সমাপ্ত হয়েছে। এছাড়া গত ২০ জানুয়ারি ২০১৮ কাপ্তাই উপজেলা স্টেডিয়াম খেলার মাঠে স্কুল ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে দিনব্যাপী অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী মাধ্যমে সমাপনী করা হয়েছে।

হর্টিকালচার সেন্টার বালুখালী, বনরূপা, লংগদু, নানিয়ারচর, আসামবস্তী ও কাপ্তাইয়ের উদ্দ্যান তত্ত্ববিদরা জানান, বর্তমানে নার্সারিতে টার্গেট অনুযায়ী চারাকলাম উৎপাদন ও বিক্রয় কার্যক্রম চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Top advertise


এই সংবাদটিতে আপনার মতামত প্রকাশ করুন

avatar
  Subscribe  
newest oldest most voted
Notify of
Shi Mon
Guest

Right