শহরে বিক্ষোভ : বৃহস্পতিবার হরতাল রাঙামাটিতে


প্রকাশের সময়: ডিসেম্বর 6, 2017

শহরে বিক্ষোভ : বৃহস্পতিবার হরতাল রাঙামাটিতে

‘যারা পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে আওয়ামীলীগকে নিশ্চিহ্ন করতে চায় এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে অবৈধ অস্ত্রের মজুদ গড়েছে,তারাই আওয়ামীলীগ নেতাদের হত্যা ও হামলা করেছে, প্রশাসন যদি এদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়,তবে পার্বত্য চট্টগ্রামের সাধারন মানুষ আইন হাতে তুলে নিতে বাধ্য হবে’ বলে মন্তব্য করেছে সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা দীপংকর তালুকদার।

তিনি বুধবার দুপুরে রাঙামাটি সদর হাসপাতাল মর্গে আনা আওয়ামী লীগ নেতা অরবিন্দ চাকমার লাশ দেখতে এসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। এসময় একইদিন হামলায় আহত বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি রাসেল মার্মাও হামলার জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতিকে দায়ি করেছেন।

রাসেল মার্মা বলেছেন,পার্বত্য চট্টগ্রামে যারা হত্যা খুনের রাজনীতি করে,সেই আঞ্চলিক দল,জনসংহতি সমিতির সশস্ত্র ক্যাডাররাই আমাকে হত্যার চেষ্টা করেছে।

এদিকে হামলার প্রতিবাদে বুধবার বিকালে রাঙামাটি শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা। শহরের পৌরচত্বর থেকে একটি বিশাল বিক্ষোভ মিছিল শহর প্রদক্ষিন করে জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা জুরাছড়িতে আওয়ামীলীগ নেতা অরিবন্দকে হত্যা ও বিলাইছড়িতে রাসেল মার্মার উপর হামলার জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতিকে দায়ি করেছেন। একই সাথে এই হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার রাঙামাটি জেলা সকাল সন্ধ্যা হরতালের ঘোষণা দিয়েছে রাঙামাটি জেলা যুবলীগ। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদার,সহসভাপতি নিখিল কুমার চাকমা,সাধারণ সম্পাদক মোঃ মুছা মাতব্বর,জেলা যুবলীগের সভাপতি আকবর হোসেন চৌধুরী,মহিলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ঝর্ণা খীসা,জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক প্রকাশ চাকমা।

রাঙামাটি জেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক নুর মোহাম্মদ কাজল জানিয়েছেন, নিহত অরবিন্দ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের পাশাপাশি উপজেলা যুবলীগেরও সহসভাপতি, এই কারণেই আমরা যুবলীগের পক্ষ থেকে হরতাল ডেকেছি। রাঙামাটির প্রতিটি উপজেলায়ও কঠোর হরতাল পালিত হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে জুরাছড়িতে মঙ্গলবারের এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় বুধবার বিকাল পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি বলে জানিয়েছেন জুরাছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল বাসেদ।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার রাত পৌনে আটটায় জুড়াছড়ি উপজেলার খাগড়াছড়ি নিম্মমাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সিঁড়িতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অরবিন্দ চাকমা (৪৫) কে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। একই সময় বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি রাসেল মার্মাকে হত্যার উদ্দেশ্যে বেদম মারপিট করা হয়। আওয়ামীলীগ দুটি ঘটনার জন্যই সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতিকে দায়ি করেছে। তবে জনসংহতি সমিতি এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।
একই দিন নানিয়ারচর উপজেলায় ইউপিডিএফ কর্মী অনাদী রঞ্জন চাকমাকেও গুলি করে হত্যা করা হয়,ইউপিডিএফ এই ঘটনার জন্য ইউপিডিএফ(গণতান্ত্রিক) কে দায়ি করেছে। সংগঠনটি নিজেদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Top advertise


এই সংবাদটিতে আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Notify of
avatar
Sort by:   newest | oldest | most voted
Littlebirddhaka Dhaka
Guest

হরতাল

Rangamati King Imran
Guest

kno…Vai

Rohoman Moksud
Guest

এত মায়া কান্না কেন

wpDiscuz