৭ই মার্চের ভাষণ বিশ^প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে তালিকাভুক্ত

মাটিরাঙ্গায় বর্ণিল আয়োজনে শোভাযাত্রা


নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা প্রকাশের সময়: নভেম্বর 25, 2017

মাটিরাঙ্গায় বর্ণিল আয়োজনে শোভাযাত্রা

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষণ বিশ^প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে তালিকাভুক্ত হওয়ায় সারাদেশের ন্যায় খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় বর্ণিল আয়োজনে শোভাযাত্রা করেছে মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসন।

মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে প্রতিস্থাপিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান‘র প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে কর্মসূচি শুরু হয় শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে। এর পরপরই বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাটি মাটিরাঙ্গার গুরুত্বপুর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে গিয়ে শেষ হয়।

এর আগে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বি.এম মশিউর রহমান, মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো: শামছুল হক এবং মাটিরাঙ্গা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো: মনছুর আলী বেলুন উড়িয়ে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন।

শোভাযাত্রা শেষে শিক্ষার্থীসহ জনতার উদ্দ্যেশ্যে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বি.এম মশিউর রহমান, মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো: শামছুল হক, এবং মাটিরাঙ্গা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো: মনছুর আলী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এতো দূরদর্শিতা আর এতো দিক-নির্দেশনা পৃথিবীর কোনো ভাষণে পাওয়া যায় না উল্লেখ করে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বি.এম মশিউর রহমান বলেন, ৭ই মার্চ যারা জাতির পিতার সেদিনের বক্তব্য ছিল বাঙ্গালী জাতির জন্য দিক নির্দেশনা। তার সে বক্তব্যে স্বাধীনতার ডাক ছিল। শিক্ষা, অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থানের পাশাপাশি দেশকে একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠায় জাতির পিতা আন্দোলন গড়ে তোলেন ৭মার্চ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬ বছর আগের ভাষন আজ আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছে। বাঙ্গালী হিসেবে এটা আমাদের জন্য বড় প্রাপ্তি।

বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন বিভাগীয় প্রধান ছাড়াও মাটিরাঙ্গা ডিগ্রী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রশান্ত কুমার ত্রিপুরা, মাটিরাঙ্গা থানার ইনস্পেক্টর (তদন্ত) মো: বায়েছ উদ্দিন, মাটিরাঙ্গা পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: হারুনুর রশিদ ফরাজী, মাটিরাঙ্গা ইসলামিয়া আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ কাজী মো: সলিম উল্যাহ, মাটিরাঙ্গা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিরনজয় ত্রিপুরা, বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো: আলী আকবর, তাইন্দং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো: হুমায়ুন কবীর, মাটিরাঙ্গা পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও মাটিরাঙ্গা পৌরসভার প্যানেল মেয়র মো: আলা উদ্দিন লিটন ছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা ও বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার লোক শোভাযাত্রাটিতে অংশ নেয়।

শোভাযাত্রায় অংশ নেয়া মাদরাসা শিক্ষার্থী সানজিদ ইয়াসমিন মুনা বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ শুনিনি তবে, তার সে বক্তব্য বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার আনন্দ মিছিলে যোগ দিয়েছি। এটাই আমার জীবনের বড় প্রাপ্তি। তার সহপাঠি আরেক শিক্ষার্থীর মারজান আকতার বলেন বঙ্গবন্ধুর সাহসী ভাষণের কারণেই আজ আমি স্বাধীন বাংলাদেশের গর্বিত সন্তান হতে পেরেছি।

বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার ও আলোচনা সভা শেষে মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির পক্ষ থেকে বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র, ছাত্রী ও শিল্পকলা একাডেমির ক্ষুদে শিল্পীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Top advertise


এই সংবাদটিতে আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Notify of
avatar
wpDiscuz