লংগদুতে কৃতী শিক্ষার্থীদের সম্মাননা অনুষ্ঠানে দীপংকর

প্রধানমন্ত্রী পার্বত্যাঞ্চলে শিক্ষা উন্নয়নে আন্তরিক


ওমর ফারুক মুছা, লংগদু প্রকাশের সময়: জানুয়ারী 13, 2018

প্রধানমন্ত্রী পার্বত্যাঞ্চলে শিক্ষা উন্নয়নে আন্তরিক

আজ যারা ছাত্র তারই আগামীতে দেশের হাল ধরবেন। তাই, ছাত্র ছাত্রীদের মেধা অর্জন করতে হবে। বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী পার্বত্যাঞ্চলে শিক্ষা উন্নয়নে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। যার ফলে রাঙামাটিতে এখন মেডিকেল কলেজ, প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও পাবলিক কলেজ স্থাপিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সদস্য ও সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার।

তিনি আরো বলেছেন, কিন্তু স্বার্থান্বেষী মহল পাহাড়ের মানুষের উন্নয়ন চায় না বলে তারা এসবের বিরুদ্ধে তীব্র বিরোধিতা করে আন্দোলন করেছে। মেডিকেল কলেজ থেকে যখন ডাক্তাররা বের হয়ে এই এলাকার মানুষের সেবা দিবে তখন বিরোধিতাকারীরা তাদের ভুল বুঝতে পারবেন।

বৃহস্পতিবার, রাঙামাটির লংগদু উপজেলার চাইল্যাতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কৃতী ও মেধাবি শিক্ষার্থীদের সম্মাননা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সদস্য ও সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার এসব কথা বলেছেন।
বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মোঃ হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ মফিজুল হক, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ও রাঙামাটি জেলা পরিষদের সদস্য স্মৃতি বিকাশ ত্রিপুরা, রাঙমাটি জেলা পরিষদের সদস্য যথা মোঃ জানে আলম ও মনোয়ার বেগম, লংগদু উপজেলা আ.লীগের সভাপতি আব্দুল বারেক সরকার।

এছাড়া বগাচতর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ, ভাসাইন্যাদম ইউপি চেয়ারম্যান হযরত আলী, লংগদু উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ হারুনুর রশীদ ও মোঃ মোশারফ হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র দাশসহ বিভিন্ন নেতা-কর্মীরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রাথমিক সমাপনি ও জেএসসি পরীক্ষায় কৃতী অর্জনকারী ছাত্র ছাত্রীদের নিকট পুরস্কার তুলে দেন প্রধান অতিথি দীপংকর তালুকদার।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Top advertise


এই সংবাদটিতে আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Notify of
avatar
Sort by:   newest | oldest | most voted
Laheru Chakma
Guest

Fuck

Sritimoy Chakma
Guest

প্রধান মন্ত্রী এটাও বেশী আন্তরিখ এবং আশাবাদী যে পার্বত্যচট্টগ্রামে একটা শুকরের ফারাম করবে।যা দেশী বিদেশী বড় বড় মালা শুকরদের জন্য।যাতে ইচ্ছে মতন একযায়গায় বেশী বেশী উল্টাইতে পারে।