নাগরিক পরিষদ ও বাঙালি ছাত্র পরিষদের মানববন্ধন

পাকুয়াখালি গণহত্যার হত্যার বিচার দাবি


প্রকাশের সময়: সেপ্টেম্বর 11, 2017

পাকুয়াখালি গণহত্যার হত্যার বিচার দাবি

পার্বত্য নাগরিক পরিষদ ও পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের যৌথ উদ্যোগে পাকুয়াখালী ট্র্যাজেডি দিবসের গণহত্যায় নিহতদের স্মরণে রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিকেলে মানববন্ধন ও সকালে বাংলাদেশ শিশু পরিষদ মিলনায়তনে এক শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পার্বত্য নাগরিক পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার আলকাছ আল মামুন ভ’ইয়ার সভাপতিত্বে এবং পার্বত্য বাঙালি ছাত্রপরিষদের সাধারণ সম্পাদক সাহাদাৎ ফরাজি সাকিব এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মো:কাউছার উল্লাহর যৌথ সঞ্চালনায় প্রধানবক্তা ছিলেন বান্দরবানের কৃতি সন্তান কর্নেল(অব:)এস এম আইয়ুব, মানববন্ধন ও শোক সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, তৃনমূল বিএনপির মহাসচিব অধ্যাপক মো:শাজাহান সাজু,ন্যাপ ভাসানীর সভাপতি মোস্তাক আহাম্মদ ভাসানী, পার্বত্য নাগরিক পরিষদের মহাসচিব এডভোকেট এয়াকুব আলী চৌধুরী, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইঞ্জি:আবদুল মজিদ।পার্বত্য নাগরিক পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক সম্মানিত উপদেষ্টা মো: শেখ আহাম্মদ রাজু, পার্বত্য নাগরিক পরিষদ সহ সাংগঠনিক আবদুল হামিদ রানা,পার্বত্য নাগরিক পরিষদ মহিলা সম্পাদিকা কবি ফাতেমা খাতুন রুনা। পার্বত্য নাগরিক পরিষদের বান্দরবান জেলার সভাপতি মো: আতিকুর রহমান,ও সাংগঠনিক সম্পাদক মো: সোলায়মান। পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের সাবেক সভাপতি ইসমাইল নবী শাওন, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের প্যানেল সভাপতি মো: ইব্রাহিম মনির, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের সিনিয়র সহ সভাপতি মো: সারোয়ার জাহান খান, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক ছাদেকুর রহমান,ও মর ফারুক সুজন, ইমরান আল হাসান, এনামুল হক, আলমগীর হোসেন, লোকমান হোসেন, জাহাঙ্গীর হোসেন, আসাদ উল্লাহ, ইয়াছিন আরাফাত, রবিউল, আলী হেসেন, সাখাওয়াত হোসেনসহ আরো অনেক সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রেখেছেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশিষ্ট কবি, গবেষক ও সাংবাদিক ড.খন্দকার আলী আজম বাবলা বলেন, অধিকার আদায় করতে হলে গোটা দেশের মানুষকে নিয়ে সম্মিলিতভাবে এক যোগে লড়াই করতে হবে। এ জন্যে ছাত্র ও যুবকদের সংগঠিত করতে হবে। মুক্তির জন্যে সাংস্কৃতিক উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। পার্বত্য চট্টগ্রামের বাঙালি যুবকদেরকে সাংস্কৃতিক সংগঠনের পতাকা নিচে আনতে হবে। আগামী প্রজন্মের সুখ,শান্তি সমৃদ্ধি ও উন্নায়নের জন্য র্বতমান প্রজন্মের নেতৃবৃন্দকে কাজ করতে হবে।

উল্লেখ্য যে, ১৯৯৬ সালের ৯ সেপ্টেম্বর রাঙামাটির লংগদুর পাকুয়াখালীর গণহত্যায় ৩৫ জন বাঙালিকে হত্যা করেছিল। তাদের স্মরণে এবং বিচারের দাবিতে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল।(বিজ্ঞপ্তি)

 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Top advertise


এই সংবাদটিতে আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Notify of
avatar
wpDiscuz