অবরোধে পিকেটারদের উপর টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও গুলি বর্ষনের প্রতিবাদে

খাগড়াছড়িতে রবিবারও অবরোধ বাড়িয়েছে ইউপিডিএফ


খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি প্রকাশের সময়: জানুয়ারী 6, 2018

খাগড়াছড়িতে রবিবারও অবরোধ বাড়িয়েছে ইউপিডিএফ

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় আরো ১দিন সকাল-সন্ধ্যা সড়ক অবরোধ বাড়িয়েছে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ)। রবিবার সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত এই সড়ক অবরোধ পালিত হবে।

সংগঠনটির অন্যতম সংগঠক মিঠুন চাকমাকে হত্যা ও পার্টি অফিসে এনে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদনে বাধাদানের প্রতিবাদে ঘোষিত শনিবারের অবরোধ পালনকালে বিনা উস্কানিতে পিকেটারদের উপর টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে প্রশাসন। এছাড়া খাগড়াছড়ি সদরের কয়েকটি জায়গায় পিকেটিং-এর সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক ফাঁকা গুলি বর্ষণের প্রতিবাদে এই সড়ক অবরোধ বাড়নো হয়।

ইউপিডিএফের প্রচার ও প্রকাশনা বিভাগের প্রধান নিরন চাকমা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানা যায়। বিজ্ঞপ্তিতে উক্ত কর্মসূচী সফল করার জন্য সকল যানবাহন মালিক, চালক, শ্রমিক সংগঠন ও সর্বস্তরের জনগণের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

এদিকে বিক্ষিপ্ত বেশ কয়েকটি ঘটনার মধ্য দিয়ে শনিবারের সকাল সন্ধ্যা সড়ক অবরোধ পালিত হয়েছে। অবরোধ চলাকালে বেলা ১০টার দিকে শহরের চেঙ্গী ব্রিজ এলাকায় পিকেটারদের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ তিন রাউন্ড শর্টগানের ফাঁকা গুলি ছুড়ে পিকেটারদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় পিকেটারদের গুলতি ও ইটপাটকেলের আঘাতে এএসআই আবুল হোসেনসহ তিন পুলিশ সদস্য আহত হয় বলে জানান খাগড়াছড়ি থানার ওসি তারেক মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান। এছাড়া খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়কের বিভিন্ন স্থানে গাছের গুড়ি ফেলে সড়ক অবরোধ করে রেখেছে পিকেটাররা।
গত বুধবার দুপুরে প্রসিত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউপিডিএফ’র অন্যতম সংগঠক মিঠুন চাকমাকে খাগড়াছড়ি শহরের স্লুইচ গেইট এলাকায় গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় নিজ দলের বিদ্রোহীদের দায়ী করেছে ইউপিডিএফ। এর আগে আভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে গত নভেম্বরে দুই ভাগে বিভক্ত হয় দলটি। সংগঠনের বিদ্রোহীদের নিয়ে ‘গণতান্ত্রিক ইউপিডিএফ’ নামে আত্মপ্রকাশ করে নতুন আরেকটি সংগঠন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Top advertise


এই সংবাদটিতে আপনার মতামত প্রকাশ করুন

avatar
  Subscribe  
Notify of